বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দিল্লি পুলিশের দেওয়া এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম। ‘ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’ জানিয়েছে, একটি জুয়াড়ি চক্র দুবাই থেকে চালানো অনলাইনে জুয়া খেলার এক ওয়েবসাইটের মালিক। দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, এই দুজন সেই জুয়াড়ি চক্রের অংশ।

তাঁরা ম্যাচের নানা তথ্য জুয়াড়িদের কাছে পাচার করছিলেন। দিল্লির আদালতে পেশ করা অভিযোগপত্রে স্থানীয় পুলিশ লিখেছে, ‘তিনটি আইপিএল ম্যাচে তারা স্টেডিয়ামের ভেতর ছিল। প্রায় ১২ জন ছিল, এর মধ্যে ১ জন দুবাইয়ের। কনফারেন্স কলের মাধ্যমে তারা একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ করে অনলাইন জুয়ায় টাকা কামাচ্ছিল।’

default-image

কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁদের মধ্যে বালাম সিং দিল্লি ও ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের (ডিডিসিএ) পিওন। আর ভিরেন্দর সিং শাহ একই ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনে আইপিএল নিয়ে অ্যাক্রেডিটশন দেওয়ার কাজে জড়িত। এ ছাড়া আরও চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দিল্লি পুলিশের ভাষ্যমতে, ‘নবদ্বীপ সিং নামের এক সন্দেহভাজন জানিয়েছেন, জুয়াড়ি–দুনিয়ায় গুগল নামে বিখ্যাত এমন এক লোকের অধীন তিনি কাজ করছেন চার বছর ধরে। তাঁর চাকরিদাতার নাকি অনলাইনে জুয়ার ওয়েবসাইট আছে এবং তিনি এটি পরিচালনা করেন। নবদ্বীপ ম্যাচগুলোতে জুয়ার দাম নির্ধারণ করতেন।’

বিশ্বজুড়ে সরাসরি সম্প্রচারিত খেলাগুলোয় জুয়াড়িরা একটি সুবিধা নিয়ে থাকেন। মাঠে খেলার কোনো দৃশ্য সরাসরি টিভি পর্দায় প্রচারের মাঝে কিছু সময় ব্যয় হয়, এই সময়ের সুবিধা নেন জুয়াড়িরা।

কখনো কখনো তা ১০ সেকেন্ডেও লেগে যায়। এ সময়ে মাঠ থেকে খেলার কোনো অংশ টিভিতে সম্প্রচার হওয়ার আগেই তথ্যটি দূরের কোনো জুয়ার চক্রে জানিয়ে দেওয়ার সুবিধাটা পাওয়া যায়।

আইপিএলের এক ম্যাচে মুখে মাস্ক ছাড়াই স্টেডিয়ামে দুজনকে দেখে দিল্লি পুলিশ। এক কথা, দুই কথায় সেই দুই লোকের সঙ্গে লেগে যায় পুলিশের।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে, গত ২ মে দিল্লি পুলিশের সহপরিদর্শক প্রদীপ কুমার দিল্লির স্টেডিয়ামের ভিআইপি লাউঞ্জের পাশে দুজনকে মাস্ক ছাড়া অবস্থায় দেখে জেরা করেন। এতে তর্কাতর্কি হয় দুই পক্ষের মধ্যে।

প্রদীপ কুমার পরিচয়পত্র দেখতে চান দুজনের। পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘বালাম ১০ হাজার রুপি এবং শাহ ৪০ হাজার রুপি নেওয়ার বিনিময়ে দুজনের পরিচয়পত্র বানিয়ে দেয়।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন