বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হার না মানা মানসিকতা, দৃঢ় সংকল্প, চোয়ালবদ্ধ দৃঢ়তা—সব মিলিয়ে আজ ইতিহাসের অষ্টম খেলোয়াড় হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের নবতম সংস্করণের ‘১০০ ক্লাবে’ প্রবেশাধিকার পাচ্ছেন মাহমুদউল্লাহ। সেই মাহমুদউল্লাহ, শুরুর দিনগুলোতে ২০ ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলে যাকে জায়গা পেতেই সংগ্রাম করতে হয়েছে।

দায়টা অবশ্য ২১ বছরের তরুণ মাহমুদউল্লাহরই। বাংলাদেশের জার্সিতে টি-টোয়েন্টিতে শুরুর দিককার ম্যাচগুলোতে যে আশা জাগানোর মতো কিছু করতে পারেননি। অভিষেক ম্যাচে কেনিয়ার বিপক্ষে ৮ বলে ২ রান, দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৫ বলে ৯ রান—উগান্ডার বিপক্ষে তৃতীয় ম্যাচে দলে আর জায়গা পেলেন না মাহমুদউল্লাহ। ওই ম্যাচের অবশ্য আন্তর্জাতিক মর্যাদা নেই। ময়মনসিংহ থেকে উঠে আসা ক্রিকেটার সুযোগ পেলেন না বিশ্বকাপের প্রথম তিন ম্যাচেও। এরপর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় রাউন্ডে ফেরার পর থেকে অবশ্য মাহমুদউল্লাহকে দলে জায়গা নিয়ে ভাবতে হয়নি খুব বেশি। শুরুর দিকে কাজ চালানোর মতো অলরাউন্ডারের ভূমিকা পালন করা সেই খেলোয়াড় সময়ের সঙ্গে অপরিহার্য হয়ে উঠেছেন বাংলাদেশ দলে। ২০১৮ সালে শ্রীলঙ্কার বাংলাদেশ সফরে প্রথমবারের মতো অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া সেই মাহমুদউল্লাহর নামটাই এখন টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের টিম শিটে সবার আগে থাকে।

default-image

২০১৫ সালের নভেম্বর থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশের খেলা ৬৫টি টি-টোয়েন্টির ৬৪টিই খেলেছেন মাহমুদউল্লাহ। এ বছরের নিউজিল্যান্ডের সফরে তৃতীয় টি-টোয়েন্টিটা খেলতে পারেননি চোটের কারণে। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের খেলা ১০৯ ম্যাচের মাত্র ১০টি ম্যাচই খেলতে পারেননি মাহমুদউল্লাহ, যার একটি অবশ্য তাঁর অভিষেকের আগের।

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ১২০.১৯ স্ট্রাইক রেট—এই পরিসংখ্যান অবশ্য বাংলাদেশ দলে মাহমুদউল্লাহর ভূমিকা খুব একটা বোঝাতে পারে না। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্ট্রাইক রেটের দুটি ইনিংসই তাঁর—মাহমুদউল্লাহকে কিছুটা বোঝাতে পারে এই পরিসংখ্যান।

মাহমুদউল্লাহ কতটা দায়িত্ব নিয়ে খেলতে পারেন, সেটির বড় প্রমাণ ২০১৮ সালের নিধাহাস ট্রফির শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি। ম্যাচ জিততে শেষ ছয় ওভারে ৫৫ রান দরকার ছিল বাংলাদেশের। শেষ ওভারের পঞ্চম বলে ছক্কা মেরে মাহমুদউল্লাহ দলকে যখন জেতালেন, তাঁর নামের পাশে ১৮ বলে ৪৩ রান! ওই বছরই মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২১ বলে ৪৩ রান করেন মাহমুদউল্লাহ।

default-image

সেই মাহমুদউল্লাহ অস্ট্রেলিয়া সিরিজের পর চলমান নিউজিল্যান্ড সিরিজেও দেখাচ্ছেন এমন উইকেটে কীভাবে ব্যাটিং করতে হয়। পরশু দ্বিতীয় ম্যাচে তাঁর ৩২ বলের অপরাজিত ৩৭ রানের ইনিংসটা না হলে হয়তো হেরেই যেত বাংলাদেশ। আগের ম্যাচেও ব্যাটসম্যানদের বধ্যভূমিতে অপরাজিত ছিলেন তিনি, দলকে জিতিয়ে ফিরেছিলেন ১৪ রানে অপরাজিত থেকে।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০ ওভারের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মাত্র পাঁচবার ৫০ ছুঁয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। কিন্তু কাঠখোট্টা সেই পরিসংখ্যানের কী সাধ্য বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি ইতিহাসে মাহমুদউল্লাহর অবদান বোঝানোর। সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমদের মতো খেলোয়াড়দের আগে ১০০ ম্যাচের মাইলফলকে ঢুকে যাওয়াটাই অবশ্য প্রমাণ মাহমুদউল্লাহর।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন