বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সুযোগ বলতে মাহমুদউল্লাহ নিশ্চিতভাবেই ম্যাচে তিনটি ক্যাচ ছাড়া ও স্টাম্পিং করতে না পারা বুঝিয়েছেন। এর মধ্যে দুটি ক্যাচ ছাড়া ও স্টাম্পিং মিস করা তো ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংসের মোড়ই ঘুরিয়ে দেয়।

সপ্তম ওভারে চেজ ৯ রানে ব্যাটিংয়ের সময় মেহেদীর হাতে ফিরতি ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন। ২৭ রানেও চেজের ক্যাচ ছাড়েন মেহেদী। চেজ শেষ পর্যন্ত ৪৬ বলে ৩৯ রান করেন। ২২ বলে ৪০ রান করা নিকোলাস পুরান ২ রানে থাকতে তাঁকে স্টাম্পিংয়ের সুযোগ হাতছাড়া করেন লিটন দাস। এ সুযোগগুলো নিতে পারলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১০০ রান তুলতে পারত কি না সন্দেহ!

default-image

সুপার টুয়েলভে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুটি ক্যাচ ছেড়ে প্রতিপক্ষের হাতে ম্যাচ তুলে দিয়েছিলেন লিটন। এবার টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম রাউন্ড থেকে হিসাব কষলে ৮–৯টি ক্যাচ ছেড়েছে বাংলাদেশ। এত বেশি ক্যাচ ছাড়লে টুর্নামেন্টে ভালো করাটা খুব কঠিন। তার মাশুল গুনেই বাংলাদেশের সেমিফাইনাল–স্বপ্ন এখন ধূলিসাৎ হওয়ার পথে।

ক্যাচ ছাড়া নিয়ে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে দলের সেরা ফিল্ডারদের কাছে প্রত্যাশা থাকে। কেউ তো ইচ্ছা করে ক্যাচ ছাড়ে না, তবে সেরাদের কাছে প্রত্যাশা থাকে সুযোগগুলো নেবে। কিন্তু ম্যাচের পর ম্যাচ আমরা যেহেতু ভুলগুলো করছি, তাই এখন এটা অবশ্যই দুশ্চিন্তার বিষয়। আমাদের ক্যাচিং আরও ভালো করতে হবে এবং করা উচিত।’

সুপার টুয়েলভে দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে শেষ দুটি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ৩ ম্যাচ জয়বঞ্চিত থেকে নিজেদের গ্রুপের তলানিতে রয়েছে মাহমুদউল্লাহর দল।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন