default-image

চেন্নাই টেস্টের প্রথম দিনটা রোহিত শর্মার। এ নিয়ে কোনো তর্ক করার সুযোগ নেই। টেস্টের প্রথম দিনেই উইকেটে স্পিনাররা দাপট দেখাচ্ছেন। প্রথম সেশনেই একটা বলের স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে বিরাট কোহলি অনেকক্ষণ বিশ্বাসই করতে পারেননি তিনি আউট হয়েছেন। বোল্ড আউটের মতো ঘটনায়ও তৃতীয় আম্পায়ারকে হস্তক্ষেপ করতে হয়েছে, জানাতে হয়েছে ব্যাটসম্যান নিশ্চিতভাবেই বোল্ড আউট হয়েছেন।

এমন এক উইকেটেই কী ভয়ংকর আগ্রাসী রোহিত। প্রথম সেশনে তো বলের চেয়ে রানই বেশি ছিল তাঁর। দিন যত গড়িয়েছে, ধীরে ধীরে বলের সংখ্যা বেড়েছে বটে, কিন্তু রোহিতের ইনিংসের সৌন্দর্য কমেনি। চেন্নাইয়ের উইকেট জো রুটের স্পিনকেও মাঝেমধ্যে ‘আনপ্লেয়েবল’ মনে করাচ্ছে। সে উইকেটেই দেড় শ ছাড়ানো এক ইনিংস ভারতীয় ওপেনারের। এমন এক দিনেও আলোচনায় ম্যাচের তৃতীয় আম্পায়ার অনিল চৌধুরী।

মাঠের খেলা ও আম্পায়ারিং মিলিয়ে জমজমাট এক দিন উপহার দিয়েছে চেন্নাই টেস্ট। প্রথম দিন শেষে ৬ উইকেটে ৩০০ রান করেছে ভারত। কোনোভাবেই একে রানপাহাড় বলা না গেলেও চেন্নাইয়ের উইকেট বলছে, এমন স্কোরের পর ভারতই এগিয়ে থাকছে প্রথম দিনে।

বিজ্ঞাপন
default-image

দিনের শুরুতেই ধাক্কা খেয়েছিল টসে জেতা ভারত। ব্যাট করতে নামা দলটি কোনো রান তোলার আগেই হারিয়ে বসেছে উইকেট। চোটের কারণে জফরা আর্চার বাদ পড়েছেন, সে জায়গায় দলে এসেছেন ওলি স্টোন। তৃতীয় বলেই তাঁকে উইকেট উপহার শুবমান গিলের। স্টোনের একটি বল খেলার কোনো চেষ্টা না করে প্যাডে লাগিয়ে এলবিডব্লু হয়েছেন গিল।

ভারত অবশ্য সে ধাক্কা টেরই পায়নি। একদিকে ধরে রেখেছিলেন চেতেশ্বর পূজারা, অন্যদিকে আক্রমণ করছিলেন রোহিত। ৪৭ বলেই ফিফটি হয়ে গেছে এই ওপেনারের। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৮৫ রান তোলার পরই ধাক্কা খেল ভারত। জ্যাক লিচের একটি বল প্রত্যাশার চেয়ে বেশি বাঁক নেওয়ায় বোকা বনলেন পূজারা। অনেক বাইরের বলটায় খোঁচা লাগিয়ে ধরা পড়লেন স্লিপে। মূল ধাক্কা ভারত খেয়েছে পরের ওভারে।

মঈন আলীর একটি বল কোহলির ব্যাটের সামনে পড়েছিল। ড্রাইভ করতে গিয়ে বোল্ড ভারতের অধিনায়ক। এতটাই বাঁক নিয়েছে বলে নাকি শূন্য রানে আউট হয়েছেন, সেটি মানতে পারেননি বলে উইকেট ছেড়ে নড়তেই চাচ্ছিলেন না কোহলি। একটু সরে এসে দাঁড়িয়ে থাকলেন। শেষ পর্যন্ত তৃতীয় আম্পায়ার দেখে জানালেন, পরিষ্কার বোল্ড কোহলি। উইকেটের এমন দশা দেখে চিন্তা নিয়েই মধ্যাহ্নবিরতিতে গিয়েছিলেন রোহিত ও অজিঙ্কা রাহানে।

default-image

বিরতি থেকে ফিরে একটু রয়েসয়ে খেলেছেন রোহিত। তাই সেঞ্চুরির জন্য প্রয়োজনীয় ২০ রান করতে এক ঘণ্টা পার করে দিয়েছেন। সেঞ্চুরি পাওয়ার পর আবার রানের গতি বাড়িয়ে নিয়েছেন। তবে চার–ছক্কার চেয়ে প্রান্ত বদলেই মন দিয়েছেন। ইংলিশ স্পিনারদের হতাশ করার জন্য সুইপ শটকে অস্ত্র মেনেছেন। আবার যখনই সুযোগ পেয়েছেন, সামনে খেলেছেন। রোহিতের সঙ্গে পাল্লা দেওয়া কারও পক্ষে সম্ভব নয়। তবে ইতিবাচক খেলেছেন রাহানে। ৮ চারে ফিফটিতে পৌঁছেছেন রাহানে। এ দুজন মিলে যখন ম্যাচটা আওতার বাইরে নিয়ে যাবেন বলে মনে হচ্ছিল, তখনই পাল্টা আঘাত ইংল্যান্ডের। বিতর্কের জন্মটাও তখন।

দিনের সেরা দুই ব্যাটসম্যানকেই আগে আউট করার সুযোগ পেয়েছিল ইংল্যান্ড। রোহিত ও অজিঙ্কা রাহানেকে ফিরিয়ে দেওয়ার সে আবেদন মাঠের আম্পায়ারের পক্ষে দেওয়া সম্ভব ছিল না। এ কারণে তৃতীয় আম্পায়ারের শরণাপন্ন হয়েছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু দুবারই বিতর্কিতভাবে সিদ্ধান্ত ভারতের পক্ষে দিয়েছেন টিভি আম্পায়ার।

প্রথম ঘটনা ৭১তম ওভারে। লিচের বলটি খেলতে পারেননি রোহিত। উইকেটরক্ষক ফোকস সেটা ধরেই বেল ফেলে দেন। তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে যান মাঠের আম্পায়ার। দেখে মনে হয়েছিল আউট হয়েছেন রোহিত। কিন্তু তৃতীয় আম্পায়ারের মনে হয়েছে দাগের পেছনে রোহিতের পা আছে। ইংলিশ সমর্থকদের ক্রোধ উগরে দিয়ে রোহিতকে নট আউট ঘোষণা করেছেন টিভি আম্পায়ার চৌধুরী।

বিজ্ঞাপন
default-image

পরের ঘটনাটি ৭৫তম ওভারে। এবারও দুর্ভাগা বোলারের নাম লিচ। রাহানের ব্যাটে বল লেগে শর্ট লেগে ধরা পড়েছে মনে করে আবেদন করে ইংল্যান্ড। মাঠের আম্পায়ার আউট দেননি। টিভি আম্পায়ার চৌধুরীও সে সিদ্ধান্তে অটল থাকলেন। বেঁচে গেলেন রাহানে, ইংল্যান্ডের রিভিউ নষ্ট হলো একটি। ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট তর্ক করলেন তবু। রুটের দাবি, বলটি প্যাডে লেগেছে ঠিক আছে। কিন্তু প্যাডে লেগে পোপের কাছে যাওয়ার আগে সেটা রাহানের গ্লাভসে লেগে গেছে। কিন্তু তৃতীয় আম্পায়ার পুরো রিপ্লেটা না দেখে শুধু প্যাডে না ব্যাটে লেগেছে, সেটা দেখেই সিদ্ধান্ত দিয়ে দিয়েছেন। একটু পরই টিভি রিপ্লে দেখিয়েছে, বল প্যাডে লেগে রাহানের গ্লাভসে লেগেছিল এবং তৃতীয় আম্পায়ার সেটা না দেখেই সিদ্ধান্ত দিয়েছেন!

ইংল্যান্ড দলের সৌভাগ্য, এমন দুটি ঘটনা তাদের খুব বেশি ভোগায়নি। ১৫৯ রানে থাকা রোহিত ২ ওভার পর লিচের বলেই আউট হওয়ার আগে আর ২ রান যোগ করতে পেরেছেন। ওদিকে রাহানে ৬ বল পর বোল্ড হয়েছেন মঈন আলীর বলে, অধিনায়ক কোহলির মতোই। এর মাঝে শুধু ১ রান করেছেন রাহানে। ২৪৯ রানে পঞ্চম উইকেট হারায় ভারত।

স্বাগতিক দল এরপর ভেঙে পড়তে পারত। কিন্তু ঋষভ পন্ত (৩৩ *) ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন (১৩) সে ধাক্কা সামলে নিয়েছেন। রুটের বলে অশ্বিন ফিরলেও পন্ত ও অভিষিক্ত অক্ষর প্যাটেল (৫ *) দিন শেষ করে এসেছেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ভারত ১ম ইনিংস: রোহিত ১৬১, রাহানে ৬৭, পন্ত ৩৩, পূজারা ২১; লিচ ২/৭৮, মঈন ২/১১২, রুট ১/১৫, স্টোন ১/৪২।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন