কিন্তু কেন টি-টোয়েন্টি দলে উমরানের থাকা না থাকা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে? ‘দোষ’টা উমরানেরই। শুধু জোরে বল করাই নয়, অকাতরে রান বিলানোর ব্যাপারেও উমরানের ‘সুনাম’ হয়েছে বেশ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতেই যেমন, চার ওভার বল করে ৫৬ রান দিয়েছেন এই তরুণ। সে ম্যাচে ভারত হেরেছেও ১৭ রানে। আর উমরানের এই রান দেওয়াই চিন্তা বাড়িয়ে দিচ্ছে কয়েকজনের, যাঁদের মধ্যে আছেন সাবেক ভারতীয় পেসার মদল লাল।

ভারতের নির্বাচকদের প্রতি মদন লালের পরামর্শ , ‘ওকে টি-টোয়েন্টির দলে নেবেন না। ওকে দিয়ে শুধু টেস্ট খেলান। ওকে টেস্ট খেলিয়ে আগে পাকাপোক্ত করুন। ও অনেক ভালো বোলার, কিন্তু ওকে আগে পরিপক্ক বোলার বানাতে হবে। ওকে আগে টেস্টে সুযোগ দিন, যেখানে ও টানা ১০-১৫ ওভার বল করে উইকেট নেওয়ার কলাকৌশল রপ্ত করতে পারবে।’

default-image

মদন লালের মতে, গতি দিয়ে লাভ নেই যদি বলে মুভমেন্ট না থাকে, ‘টি-টোয়েন্টিতে ব্যাটসম্যানরা প্রথম থেকেই প্রস্তুত থাকে। ওকেই সবাই মারতে চায়। ওর বলগুলো ব্যাটসম্যানদের ব্যাটে সরাসরি যাচ্ছিল। আমি আগেও বলেছি, বলে যদি মুভমেন্ট না থাকে, শুধু গতি দিয়ে কিছু হবে না। আমি নির্বাচক হলে ওকে টি-টোয়েন্টিতে নিতাম না।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন