গত ডিসেম্বরের শেষ দিকের কথা। বাংলাদেশের মাটিতে দুই টেস্টের সিরিজে পাকিস্তানের জয়ের পথে চট্টগ্রামে শতক ও অর্ধশতক হাঁকানো আবিদ পাকিস্তানে ফেরার পর নেমেছিলেন ঘরোয়া ক্রিকেটের ম্যাচে।

কায়েদে আজম ট্রফিতে সেদিন তাঁর দল সেন্ট্রাল পাঞ্জাবের হয়ে খেলছিলেন খাইবার পাখতুনখাওয়ার বিপক্ষে। করাচিতে ম্যাচের মধ্যেই তাঁর বুকে তীব্র ব্যথা অনুভূত হওয়ায় দ্রুতই হাসপাতালে নেওয়া হয় আবিদকে। পরীক্ষা-নিরীক্ষায় জানা যায়, তিনি অ্যাকিউট করোনারি সিনড্রোম নামের হৃদ্‌যন্ত্রের জটিলতায় আক্রান্ত।

default-image

এরপর হৃদ্‌রোগ বিশেষজ্ঞের অধীনে চিকিৎসা নিয়েছেন তিনি, অস্ত্রোপচার হয়েছে। সেখানে দুটি স্ট্যান্ট পরানো হয়েছে তাঁকে। অস্ত্রোপচারের পর পুনর্বাসনের প্রক্রিয়া এখনো শেষ হয়নি আবিদের। এর মধ্যেই ব্যাট হাতে নেমে পড়েছেন! এত দিনের ভালোবাসা, দূরে থাকা যে যায় না!

টুইটারে ব্যাটিং অনুশীলনের ভিডিও দিয়ে আবিদ লিখেছেন, ‘পবিত্র রমজান মাস একটা মঙ্গলময় মাস, সৃষ্টিকর্তার কৃপার এই মাসে আমার অনুশীলনেও গতি বেড়েছে। আপনাদের দোয়া সঙ্গে নিয়ে এই ব্যাটিং নেট থেকে মাঠে যাবে, এরপর পাকিস্তান দলেও যাবে ইনশা আল্লাহ।’

দুঃস্বপ্নের সময়টা পেছনে ফেলে আসার পথে শুভকামনায়, প্রার্থনায় তাঁর পাশে থাকা সবাইকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন আবিদ।

৩১ বছর বয়সে প্রথম পাকিস্তানের হয়ে খেলার সুযোগ পাওয়া আবিদ এ পর্যন্ত ১৬ টেস্টে ৪৯.১৬ গড়ে ১১৮০ রান করেছেন। টেস্ট ক্যারিয়ারে শতক পেয়েছেন চারটি, অর্ধশতক তিনটি। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে অবশ্য সেভাবে আলো ছড়াতে পারেননি। টি-টোয়েন্টি তো খেলাই হয়নি, ওয়ানডে খেলেছেন ছয়টি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন