ফিফটি তুলে নেওয়ার ইনিংসটি খেলার পথে রেকর্ড বইয়ের একটি পাতায় বিরাট কোহলিকে পেছনে ফেলেছেন পাকিস্তানের এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দ্রুততম ২০০০ রানের মাইলফলক ছুঁয়েছেন রিজওয়ান। এই মাইলফলক আগেই গড়েছেন পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজম।

default-image

গত বছর এপ্রিলে হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৫২তম ইনিংসে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ২ হাজার রানের মাইলফলকের দেখা পান বাবর। তখন থেকে এই সংস্করণে বাবরই দ্রুততম ২০০০ রান সংগ্রাহক। কাল বাবরের এই রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন তাঁরই সতীর্থ রিজওয়ান। তিনিও নিজের ৫২তম ইনিংসে এসে এই সংস্করণে ২০০০ রানের মাইলফলকের দেখা পান। ব্যক্তিগত ৫৭ রানে মাইলফলকটির দেখা পান রিজওয়ান। অর্থাৎ, আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে বাবর ও রিজওয়ান এখন যৌথভাবে দ্রুততম ২০০০ রান সংগ্রাহক। সেটি অবশ্য ইনিংসসংখ্যা বিচারে।

সময়ের হিসাবে অবশ্য বাবরই এগিয়ে। ২০১৬ সালে টি-টোয়েন্টি অভিষেকের পর বাবরের এই মাইলফলক গড়তে সময় লেগেছে ৪ বছর ২৩০ দিন। ২০১৫ সালে এই সংস্করণে অভিষিক্ত রিজওয়ানের সময় লাগল ৭ বছর ১৪৯ দিন। ম্যাচসংখ্যায়ও বাবর এগিয়ে। ক্যারিয়ারের ৫৪তম ম্যাচে এসে এই মাইলফলক গড়েন বাবর।

৬৩তম ম্যাচে এসে একই মাইলফলকের দেখা পেলেন রিজওয়ান। তার চেয়ে কম ম্যাচ খেলে একই মাইলফলকের দেখা পেয়েছেন বিরাট কোহলি (৬০), লোকেশ রাহুল (৬২) ও অ্যারন ফিঞ্চ (৬২)। কিন্তু সময় আর ম্যাচসংখ্যায় বাবরকে কেউ ধরতে পারেননি। শুধু রিজওয়ানই দ্রুততম ২০০০ রানের দেখা পাওয়ার পথে ইনিংসসংখ্যায় ধরে ফেললেন বাবরকে।

রিজওয়ান এই পথে পেছনে ফেলেছেন কোহলি, রাহুল ও ফিঞ্চকে। কোহলি ক্যারিয়ারের ৫৬তম ইনিংসে, রাহুল ৫৮তম এবং ফিঞ্চ ৬২তম ইনিংসে গিয়ে এই সংস্করণে ২০০০ রানের দেখা পেয়েছেন। কোহলির এই মাইলফলকের দেখা পেতে সময় লেগেছে ৮ বছর ২১ দিন। রাহুলের লেগেছে ৬ বছর ৯৪ দিন এবং ফিঞ্চ ৯ বছর ২৩৬তম দিনে এসে ২০০০ রানের দেখা পেয়েছেন।

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দ্রুততম ২০০০ রান (ইনিংস) :

নাম ইনিংস দেশ
বাবর আজম ৫২ পাকিস্তান
রিজওয়ান ৫২ পাকিস্তান
বিরাট কোহলি ৫৬ ভারত
লোকেশ রাহুল ৫৮ ভারত
অ্যারন ফিঞ্চ ৬২ অস্ট্রেলিয়া

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন