অশ্বিনের নির্বিষ বোলিংয়ের (৪ ওভারে ৪৩ রান) পর বাংলাদেশের বিপক্ষে তাঁকে বসিয়ে যুজবেন্দ্র চাহালকে খেলানোর দাবি তুলেছিলেন কেউ কেউ। তবে ওয়াসিম জাফর আভাস দিয়েছিলেন, কৌশলগত কারণে এ ম্যাচেও থাকবেন অশ্বিন। শুধু তা-ই নয়, বাংলাদেশ দলে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের আধিক্য থাকায় অশ্বিন বড় ভূমিকা পালন করবেন বলে মনে করেন তিনি।

ভারতের সাবেক টেস্ট ওপেনার জাফর বর্তমানে বাংলাদেশের কোচিংয়ে সম্পৃক্ত। অনূর্ধ্ব-১৯ ও হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলের ব্যাটিং পরামর্শক। দুই দেশেরই নাড়ি-নক্ষত্র ভালোই জানা তাঁর।

দুই দল মুখোমুখি হওয়ার আগে ক্রিকেট–বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটকে জাফর বলেছেন, ‘যুজবেন্দ্র চাহাল খেলবে কি না, আগে থেকেই বলা যাচ্ছে না। অ্যাডিলেড ওভালের (স্কয়ার অংশে) সীমানা ছোট। তা ছাড়া বাংলাদেশ দলে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান বেশি। ওদের দুই ওপেনারই বাঁহাতি। আফিফ হোসেনও তাই। আমি মনে করি, দলে অশ্বিনকে দরকার। ওকেই এবার ভালো করতে হবে।’

ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট জাফরের কথাগুলো শুনেছে কি না, জানা সম্ভব নয়। তবে বাংলাদেশ দলে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের আধিক্যের বিষয়টি মাথায় রেখে ডানহাতি অফস্পিনার অশ্বিনকে ঠিকই একাদশে রেখেছে ভারত।

অশ্বিন মাঝের ওভারগুলোতে উইকেট নিয়ে বাংলাদেশকে চাপে ফেলবেন বলেও আশা জাফরের, ‘অশ্বিন মিতব্যয়ী বোলার। তবে ভারত ওর কাছ থেকে মাঝের ওভারগুলোতে উইকেট চাইবে। রান আটকানো সব সময় ভালো না–ও হতে পারে। এটা ঠিকই ম্যাচ টেনে নিয়ে যায়। খেললে ওকে উইকেট নিতে হবে।’

ব্যাটিং সামর্থ্যের কারণেও অশ্বিনকে একাদশে দেখতে চেয়েছিলেন জাফর, ‘লোয়ার অর্ডারে ওর ব্যাটিং ভারতের কাজে দিতে পারে। ৭ কিংবা ৮ নম্বরে নেমেও দারুণ অবদান রাখতে পারে। এরপর ভুবনেশ্বরও আছে। ওরা থাকলে ব্যাটিং গভীরতা বাড়ে। তাতে টেলএন্ডার নিয়েও ভারত নির্ভার থাকতে পারে।’

আগের ম্যাচগুলোতে ইনিংসের গোড়াপত্তন করেছেন নাজমুল ও সৌম্য সরকার। আজ সৌম্যকে বাদ দিয়ে একাদশ সাজিয়েছে বাংলাদেশ। তাতে অবশ্য বাঁহাতির আধিক্য কমেনি। সৌম্যর জায়গায় এসেছেন আরেক বাঁহাতি শরীফুল। সব মিলিয়ে একাদশে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের সংখ্যা ছয়।

টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৬ উইকেটে ১৮৪ রান তুলেছে ভারত। অশ্বিনকে দলে নিয়ে ভারতীয় ম্যানেজমেন্ট ঠিক নাকি ভুল করল, সেটাও জেনে যাবেন ম্যাচ শেষেই।