চোট কাটিয়ে দলে ফিরেছেন লিটন দাস, নুরুল হাসান, ইয়াসির আলী ও হাসান মাহমুদ। লিটন জিম্বাবুয়ে সফরে হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছিলেন, ওই সফরেই আঙুল ভেঙেছিল নুরুল হাসানের। আর ইয়াসির আলী চোট পেয়েছিলেন সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে, টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে প্রস্তুতি ম্যাচে। চোটের কারণে এশিয়া কাপের দলে ছিলেন না তিনজনের কেউই। এশিয়া কাপের আগে অনুশীলনে অ্যাঙ্কেলে চোট পেয়ে টুর্নামেন্ট মিস করেন হাসান মাহমুদ।

নাজমুল সর্বশেষ খেলেছেন জিম্বাবুয়ে সফরে, এরপর এশিয়া কাপের দল থেকে বাদ পড়েন তিনি। তবে বিশ্বকাপে তাঁকে ব্যাকআপ ওপেনার হিসেবে ভাবা হচ্ছে, এমন জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন।

মাহমুদউল্লাহ ছাড়াও সর্বশেষ এশিয়া কাপের দল থেকে বাদ পড়েছেন এনামুল হক, মোহাম্মদ নাঈম, পারভেজ হোসেন ও মেহেদী হাসান। এনামুল ও নাঈম এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে ওপেনিং করেছিলেন, তবে পরের ম্যাচে খেলানো হয়নি তাঁদের। পারভেজ হোসেন জিম্বাবুয়েতে শেষ টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক করেছিলেন, তবে এরপর এশিয়া কাপের দলে থাকলেও খেলানো হয়নি তাঁকে। এ ছাড়া অবসর নিয়েছেন মুশফিকুর রহিম।

বিশ্বকাপের দলে স্ট্যান্ডবাই হিসেবে রাখা হয়েছে চারজনকে—শরীফুল ইসলাম, রিশাদ হোসেন, মেহেদী হাসান ও সৌম্য সরকার।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দল

সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, আফিফ হোসেন, মোসাদ্দেক হোসেন, লিটন দাস, ইয়াসির আলী, নুরুল হাসান (সহ-অধিনায়ক), মোস্তাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, তাসকিন আহমেদ, ইবাদত হোসেন, হাসান মাহমুদ, নাসুম আহমেদ, নাজমুল হোসেন। স্ট্যান্ডবাই: শরীফুল ইসলাম, রিশাদ হোসেন, মেহেদী হাসান, সৌম্য সরকার।