সাবেক প্রোটিয়া অধিনায়ক ও এসএ–২০ লিগের কমিশনার গ্রায়েম স্মিথ বলেছেন, ‘আমরা ওয়াইল্ড কার্ড পদ্ধতিতে খেলোয়াড় নেওয়ার ব্যবস্থা করেছি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর আমরা দলগুলোকে অন্তত একজন ক্রিকেটারকে দলে ভেড়ানোর অনুমতি দিচ্ছি। আমরা কাউকে নির্বাচন করে দিচ্ছি না। দলগুলো তাদের চাহিদা অনুসারে খেলোয়াড় নিতে পারবে।’

ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যস্ত সূচির কথা মাথায় রেখে এর আগে পিসিবি তাদের ক্রিকেটারদের এই লিগে খেলার অনুমতি দেয়নি। এই টুর্নামেন্টের সব কটি দলের মালিকই আইপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজির। পিসিবির অনুমতি না দেওয়ার পেছনে এই কারণটাও শোনা গেছে। তবে ঠিক কী কারণে পিসিবি তাদের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে, সেটা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

ধারণা করা হচ্ছে, ২০২৩ সালের জানুয়ারিতে পাকিস্তানে সফর করার কথা ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের, সেই সফর স্থগিত হওয়ায় পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের এই লিগে খেলার সুযোগ দিচ্ছে পিসিবি।

এসএ–২০ লিগের কাছাকাছি সময়েই মাঠে গড়াবে বিপিএল, বিগ ব্যাশ ও আরব আমিরাতের ইন্টারন্যাশনাল লিগ টি–টোয়েন্টি। আরব আমিরাতের এই ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে খেলার অনুমতি দেয়নি পিসিবি।

দক্ষিণ আফ্রিকার নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি টি–টোয়েন্টি লিগ শুরু হবে আগামী বছরের ২৩ জানুয়ারি।