নামের শেষাংশ দেখেই বুঝে ফেলার কথা ত্যাগনারায়ণ কিংবদন্তি শিবনারায়ণ চন্দরপলের ছেলে। দলে একমাত্র নতুন মুখ ২৬ বছর বয়সী এ ওপেনার। ফিরেছেন অলরাউন্ডার রোস্টন চেজ ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান শামার ব্রুকস। ব্রুকস অবশ্য ক্যারিবীয়দের ব্যর্থ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে ছিলেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের প্রধান নির্বাচক ডেসমন্ড হেইন্স ত্যাগনারায়ণকে দলে নেওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করেছেন, ‘চার দিনের চ্যাম্পিয়নশিপ টুর্নামেন্টে ত্যাগনারায়ণ চন্দরপল খুব ভালো খেলেছে। সেন্ট লুসিয়ায় এই গ্রীষ্মে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের বিপক্ষেও টপ অর্ডারে দারুণ অবদান রেখেছে। সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলতে যা যা করা দরকার, ও করেছে।’

ত্যাগনারায়ণের স্ট্যান্স বাবার মতো অমন বিদঘুটে নয়। তবে শিবনারায়ণ যেমন বেলের ওপর ব্যাটের হাতল ঠুকে গার্ড নিতেন, ত্যাগনারায়ণও তা-ই। দুজনই বাঁহাতি। ২০১৪ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে মেরুন জার্সিতে খেলেছেন ত্যাগনারায়ণ। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট তো বাবা-ছেলে একসঙ্গেই খেলেছেন। ২০১৭ সালে একই ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরির বিরল কীর্তিও আছে দুজনের।

৩০ নভেম্বর পার্থে শুরু অস্ট্রেলিয়া-ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম টেস্ট। অ্যাডিলেডে গোলাপি বলে দিবা-রাত্রির শেষ টেস্ট ৮ ডিসেম্বর থেকে। পেস সহায়ক উইকেটের কথা মাথায় রেখে দলে কোনো স্বীকৃত স্পিনার রাখেননি নির্বাচকেরা।

ধারণা করা হচ্ছে, পার্থেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সিতে অভিষেক হবে ত্যাগনারায়ণের। কারণ, তিনি ও অধিনায়ক ক্রেগ ব্রাফেট ছাড়া দলে আর কোনো টেস্ট ওপেনার নেই। ডোপ পরীক্ষার জন্য রক্তের নমুনা দিতে অস্বীকৃতি জানানোয় চার বছরের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে আরেক ওপেনার জন ক্যাম্পবেলকে।

১৯৯৭ সালের পর অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে আর টেস্ট জেতেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

অস্ট্রেলিয়া সফরের ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট দল

ক্রেগ ব্রাফেট (অধিনায়ক), জার্মেইন ব্ল্যাকউড (সহ-অধিনায়ক), ত্যাগনারায়ণ চন্দরপল, রোস্টন চেজ, এনক্রুমা বোনার, শামার ব্রুকস, জেসন হোল্ডার, জসুয়া ডা সিলভা, কাইল মেয়ার্স, অ্যান্ডারসন ফিলিপ, আলজারি জোসেফ, রেমন রেইফার, কেমার রোচ, জেইডেন সিলস ও ডেভন টমাস।