গত কিছুদিন ধরে কেইন উইলিয়ামসনের অধিনায়কত্ব নিয়ে কানাঘুষা চললেও বিশ্বকাপে তাঁর ওপরই ভরসা রেখেছে নিউজিল্যান্ড। এ নিয়ে টানা তিন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নেতৃত্ব দেবেন উইলিয়ামসন। চোটের কারণে শেষ কয়েকটি সিরিজ খেলতে না পারলেও চোট কাটিয়ে উঠে দলে জায়গা পেয়েছেন পেসার অ্যাডাম মিলনে।

চোট-জর্জরিত ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত খেলেছেন ৩১ ম্যাচ, ২৬.৬৮ গড়ে নিয়েছেন ৩২ উইকেট। গত বিশ্বকাপে লকি ফার্গুসনের বদলি হিসেবে খেলেছিলেন মিলনে। এবার অবশ্য ফার্গুসন ও মিলনে এই দুই পেসারই দলে আছেন। তবে চোটের কারণে বিশ্বকাপ দলে জায়গা হয়নি কাইল জেমিসনের।

পেস-সমৃদ্ধ নিউজিল্যান্ড দলে স্পিন বিভাগের দায়িত্ব থাকছে মিচেল স্যান্টনার ও ইশ সোধির ওপর। খণ্ডকালীন বোলার হিসেবে হাত ঘোরাতে পারেন ব্রেসওয়েলও। কয়েক দিন আগেই ওপেনিং ব্যাটসম্যান ফিন অ্যালেনকে ২০২২-২৩ মৌসুমের চুক্তিতে অন্তর্ভুক্ত করে এনজেডসি। ১৩টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচের ক্যারিয়ারে ১৬৯.৫৪ স্ট্রাইকরেটে ব্যাট করেছেন ফিন অ্যালেন। মূলত এই স্ট্রাইকরেটই তাঁকে জায়গা করে দিয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দলে।

দল নিয়ে আত্মবিশ্বাসী নিউজিল্যান্ড দলের কোচ গ্যারি স্টিড বলেছেন, ‘গত বিশ্বকাপের পর খুব অল্প সময়ের মধ্যেই আরেকটি টি- টোয়েন্টি বিশ্বকাপ হতে যাচ্ছে। এটা আমাদের জন্য দারুণ কিছু কারণ গত বিশ্বকাপে শেষ পর্যন্ত শিরোপা জিততে না পারলেও আমরা ভালো ক্রিকেট খেলেছিলাম। এই স্কোয়াডের বেশির ভাগই গত বিশ্বকাপে খেলেছে, শুধু ফিন আ্যালেন ও ব্রেসওয়েল যোগ হয়েছে। আমরা এই বিশ্বকাপে বেশ আশা নিয়েই খেলতে যাচ্ছি।’

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের সঙ্গে ত্রিদেশীয় সিরিজেও খেলবে নিউজিল্যান্ডের এই দল। ২২ অক্টোবর সিডনিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু নিউজিল্যান্ডের টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ড দল: কেইন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), ফিন অ্যালেন, ট্রেন্ট বোল্ট, মাইকেল ব্রেসওয়েল, মার্ক চাপম্যান, ডেভন কনওয়ে, লকি ফার্গুসন, মার্টিন গাপটিল, অ্যাডাম মিলনে, ড্যারিল মিচেল, জিমি নিশাম, গ্লেন ফিলিপস, মিচেল স্যান্টনার, ইশ সোধি ও টিম সাউদি।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন