টেন্ডুলকারের টুইটে লাবুশেনের মন্তব্যটা ছিল এ রকম, ‘সহমত শচীন, অস্ট্রেলিয়া বনাম ভারত ম্যাচ দিয়ে শুরু, এটা বেশ রোমাঞ্চকর।’ মন্তব্যটা খু্বই সাদামাটা। উল্টাপাল্টা কিছু নেই এতে বা টেন্ডুলকারের বিপক্ষেও কিছু বলেননি লাবুশেন।

এরপরও টেন্ডুলকার–ভক্তদের কাছে মন্তব্যটি ভালো না লাগার কারণ একটাই। লাবুশেন টেন্ডুলকারকে শুধুই ‘শচীন’ বলে সম্বোধন করেছেন। এখানে টেন্ডুলকারের প্রতি অশ্রদ্ধা করা হয়েছে বলেই মনে করেন তাঁরা।

default-image

টেন্ডুলকারকে লাবুশেন কেন ‘শচীন স্যার’ বললেন না, এটাই তাঁর ভক্তদের প্রশ্ন। একজন তো লাবুশেনের এই আচরণে ক্ষুব্ধ হয়ে লিখেছেন, ‘তাঁর যখন অভিষেক হয়েছে, তুমি তখন নেপি পরতে, তাই কিছু শ্রদ্ধা দেখাও তাঁকে!’

টেন্ডুলকার–ভক্তরা যে কী পরিমাণ রেগে গেছেন, আরও দু–একটা মন্তব্য দেখলে সেটা ভালো করে স্পষ্ট হবে। একজন তো লাবুশেনকে আচার–আচরণ ভালো করে শেখার পরামর্শ দিয়ে লিখেছেন, ‘সঠিক আচরণ করতে শেখো। শচীন স্যার তোমার বাবার মতো। আর অবশ্যই শচীন স্যার ক্রিকেটের ঈশ্বর। তাই তাঁকে “স্যার” বলো।’

লাবুশেনকে টেন্ডুলকার–ভক্তদের তোপ দাগা এখানেই শেষ নয়। এক টুইটার ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘“শচীন” বললে? ভারতের কোনো খেলোয়াড় তাঁর সঙ্গে এভাবে কথা বলে না। কিছু শ্রদ্ধা তো দেখাও।’ আরেকজন লিখেছেন, ‘মারনাস, কিছু শ্রদ্ধা দেখাও। তিনি একজন কিংবদন্তি এবং ভারতকে গর্বিত করেছেন। এ ছাড়া তিনি তোমার সিনিয়রও।’

কমনওয়েলথ গেমস ক্রিকেটে অবশ্য ভারতের মেয়েদের শুরুটা ভালো হয়নি। টসে জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ৮ উইকেটে ১৫৪ রান করে ভারত। একটা সময় ৪৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেললেও ৬ বল হাতে রেখে ৩ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় অস্ট্রেলিয়ার মেয়েরা।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন