কিন্তু বৃষ্টি হাসছিল আড়াল থেকে। ৯০ শতাংশ বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকার পরও রোববার ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ হয়ে গেল ঠিকঠাকমতো। কোথাও যেন আটকে গিয়েছিল বৃষ্টি!

কিন্তু বুধবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আফগানিস্তান ম্যাচের দিনই ঝমঝমিয়ে নেমেছে। একটি বলও খেলা হয়নি। ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়ে যায় টস ছাড়াই। তবু এমসিজিতে আরেকটি ম্যাচ ছিল বলে আশায় ছিলেন নবীরা। কিন্তু একদিন আগের বৃষ্টিই ফিরে এল আবার।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে আফগানিস্তানের আজকের ম্যাচও কোন বল খেলা ছাড়াই পরিত্যক্ত হলো। এমনকি টসও হয়নি।

টানা দুটি ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয়ে যাওয়ায় আফগানরা নিজেদের দুর্ভাগা ভাবতেই পারেন। তবে এমসিজিতে না খেলতে পারার দুর্ভাগ্যই হয়তো বেশি তাড়িয়ে বেড়াবে।

আয়ারল্যান্ড ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার পর আফগানিস্তান অধিনায়ক নবী যেমন বলছিলেন, ‘বেশির ভাগ খেলোয়াড়ই হতাশ। এ ধরনের দারুণ একটা মাঠে খেলতে না পারায় বেশির ভাগ খেলোয়াড়ই হতাশ। পাঁচ বছর ধরে আমি আর রশিদ বিগ ব্যাশে খেলি। আমাদের অভিজ্ঞতা আছে। ওদের কারও নেই। কিন্তু আবহাওয়ার ওপর তো আমাদের নিয়ন্ত্রণ নেই। মেনে নেওয়া ছাড়া উপায় কী?’

২০১৭-১৮ মৌসুম থেকে নিয়মিতই বিগ ব্যাশে খেলেন রশিদ-নবী। রশিদ এখন অ্যাডিলেড স্ট্রাইকার্সে, নবী মেলবোর্ন রেনেগেডসে। আর মুজিব খেলেন ব্রিসবেন হিটে।

এমসিজিতে টানা দুটি ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেস্তে যাওয়ায় গ্রুপ ১-এ আফগানিস্তান এখনো জয়শূন্য। সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে হারের পর দুই পরিত্যক্ত ম্যাচের ২ পয়েন্টই আছে ভান্ডারে। আফগানদের বিপক্ষে ম্যাচ ভেসে যাওয়ায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত অবশ্য আয়ারল্যান্ড।

শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে সুপার টুয়েলভ শুরু করলেও পরের ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ডি/এল নিয়মে ৫ রানে হারিয়েছেন অ্যান্ড্রু বলবার্নিরা। আফগানিস্তানকে হারাতে পারলে পয়েন্ট তালিকায় ভালো একটা অবস্থানে চলে যাওয়া যেত।

সেটি না হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই আয়ারল্যান্ড অধিনায়ক হতাশ, ‘খুবই হতাশাজনক। আমরা ভালো ক্রিকেট খেলছিলাম। আবহাওয়ার ওপর তো কিছু করার নেই।’