৮৩, এই হলো দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর। বৃষ্টিবিঘ্নিত এ ম্যাচে আগে ব্যাট করতে নেমে ইংল্যান্ড যে খুব ভালো করেছে, তা নয়। ম্যাচ ২ ঘন্টা ৪৫ মিনিট দেরিতে শুরু হওয়ায় ২৯ ওভারে নামিয়ে আনা হয় খেলা।

ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য ভালো হলেও ভেজা আবহাওয়ায় সেটি সম্ভব হয়নি। এমনকি স্পিনারেরাও মাঝে–মধ্যে বাঁক পেয়েছেন। ১২ ওভারের মধ্যে ৭২ রানে ৫ উইকেট পড়ে গিয়েছিল ইংল্যান্ডের।

default-image

সেখান থেকে ইংল্যান্ড ২০১ রান তুলতে পেরেছে লিয়াম লিভিংস্টোন–স্যাম কারেনদের কল্যাণে। পুরো সময় অবশ্য খেলতে পারেননি। অলআউট হয় ২৮.১ ওভারে। পরে রিস টপলি–আদিল রশিদরা ১১৮ রানের জয় এনে দেন ইংল্যান্ডকে।

নিজেদের ওয়ানডে ইতিহাসে যুগ্মভাবে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন রানে অলআউট হলো দক্ষিণ আফ্রিকা। ২০০৮ সালে নটিংহামে এই ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই ৮৩ রানে অলআউট হয়েছিল প্রোটিয়ারা। ১৯৯৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রোটিয়াদের ৬৯ রানে অলআউট হওয়াই ওয়ানডেতে তাঁদের সর্বনিম্ন সংগ্রহ।

কাল রাতে তেমন কিছু হওয়ার ঝুঁকিও ছিল। ৪ ওভারের মধ্যে ৬ রানে ৪ উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা। নবম ওভারে ২৭ রানে ডেভিড মিলারও আউট হওয়ার পর রান তাড়ার পথ থেকে ছিটকে পড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা। বাকিটা পথ ছিল শুধুই টিকে থাকার চেষ্টা।

default-image

দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংসে প্রথম চার ব্যাটসম্যানের মধ্যে তিনজনই রানের খাতা খুলতে পারেননি। ইয়ানেমান মালান, রাসি ফন ডার ডুসেন ও এইডেন মার্করাম শুন্য রানে আউট হন। হেনরিক ক্লাসেন ৩৩ রান না করলে নিজেদের ওয়ানডে ইতিহাসে সর্বনিম্ন রানে অলআউট হওয়ার রেকর্ডটি নতুন করে লেখানোর ঝুঁকিতে পড়ত প্রোটিয়ারা। ২ উইকেট নেন টপলি। ৩ উইকেট আদিল রশিদের।

বেন স্টোকস ওয়ানডে থেকে অবসর নেওয়ার পর এ ম্যাচে অলরাউন্ডার হিসেবে তাঁর ঘাটতিটুকু পুষিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন কারেন। ১৮ বলে তাঁর ৩৫ রানের ইনিংসটি ইংল্যান্ডকে দুই শ পার করতে দারুণ সহায়তা করে। তাঁর নেওয়া মিলারের (১২ বলে ১৩) উইকেটটিও গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ৩৮ রান করেন লিভিংস্টোন। জয়ের পর ইংল্যান্ড অধিনায়ক জস বাটলার বলেছেন, ‘ভালো লাগছে। জয়টা দারুণ আমাদের জন্য। সবাই খুব ভালো বল করেছে।’

প্রোটিয়া অধিনায়ক মহারাজ মনে করেন, ব্যাটসম্যানেরা উইকেটের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারেনি এবং শুরুতে দ্রুত উইকেট হারানোয় দল আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি, ‘এই উইকেটে এই রান তাড়া করা সম্ভব বলেই ভেবেছিলাম। কিন্তু আমরা মানিয়ে নিতে পারিনি। পাওয়ার প্লে–র মধ্যে চার উইকেট হারালে মানিয়ে নেওয়াও কঠিন।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন