বিশ্বের সব পর্যটকের শহরই কমবেশি এ রকম হলেও প্রশান্ত মহাসাগরপারের গোল্ডকোস্টের কিছু বাড়তি আবেদন আছে, যেটা পর্যটকদের বারবার টেনে আনে এ শহরে। অস্ট্রেলিয়ায় পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে এটি মূলত আরামদায়ক আবহাওয়া, দীর্ঘ সৈকত, সার্ফিংয়ের জন্য সমুদ্রের রোমাঞ্চকর উঁচু ঢেউ আর আকর্ষণীয় সব থিম পার্কের সৌজন্যে।

গোল্ডকোস্টে সার্ফিংয়ের জন্য আছে অসংখ্য সৈকত। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি রোমাঞ্চকর উঁচু ঢেউয়ের সার্ফার্স প্যারাডাইজ। এক পাশে সমুদ্র, আরেক পাশে বিলাসবহুল সব হোটেল, শপিং মল আর রেস্তোরাঁ। দিন–রাত ২৪ ঘণ্টাই পর্যটকদের আনাগোনায় জমজমাট এই পরিবেশটা অবশ্য কিছুদিন আগে একরকম হারিয়েই গিয়েছিল। গোল্ডকোস্ট আবার রঙিন হবে, এটা কল্পনা করাই তখন দুঃসাধ্য ছিল।

করোনার কারণে সারা পৃথিবীতেই যখন তালা লেগেছিল, তখন গোল্ডকোস্টও হয়ে পড়েছিল পর্যটকশূন্য। হোটেল–রেস্তোরাঁ সব বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। করোনা কমে আসার সঙ্গে সঙ্গে গোল্ডকোস্টের সৈকতগুলো ফিরে পেয়েছে প্রাণ।

সবকিছুর দাম বেড়ে যাওয়ায় শুধু ছুটি কাটানোর খরচটাই একটু বেড়ে গেছে। করোনার ক্ষতি পোষাতে ব্রিসবেনের সপ্তাহে ৫০০ ডলারের ঘরভাড়া যখন ৭৫০ ডলার ছুঁয়েছে, গোল্ডকোস্টের পর্যটকদেরও তখন বাড়তি ডলার গুনতে হওয়াটাই স্বাভাবিক। অস্ট্রেলিয়ারই অন্যতম ব্যয়বহুল শহর এটি।

পর্যটকদের শহর হিসেবে গোল্ডকোস্টের পরিচিতি বেশি হলেও অস্ট্রেলিয়ায় আবাসিক শহর হিসেবেও এটির বেশ জনপ্রিয়তা। সর্বশেষ হিসাবে প্রায় সাড়ে ৫ লাখ মানুষের বাস ৪১৫ বর্গকিলোমিটারের এ শহরে।

আর আছে ঝাঁকে ঝাঁকে সারস পাখি। সৈকতে যান, শপিং মলের সামনে যান, রাস্তার পাশের খোলা রেস্তোরাঁয় যান—দেখা পাবেন ‘পোষা’ সারস পাখির। ‘পোষা’ বলার কারণ আপনি অনেক কাছে চলে যাওয়ার পরও তারা উড়ে যাবে না। এক রেস্তোরাঁয় গিয়ে তো দেখা গেল, অতিথিদের টেবিলের ওপরই নির্ভয়ে হাঁটাহাঁটি করছে একটা সারস পাখি!

গোল্ডকোস্টের দরজা আসলে উন্মুক্ত। সেটা সার্ফারই হোন, কিংবা সাধারণ পর্যটক অথবা ওই সারস পাখির ঝাঁক। সোনালি সৈকতের শহর সবাইকেই আবাহন জানায় তার জাদুকরি অলস সৌন্দর্যে ডুবে যেতে।