অলিম্পিকে ক্রিকেট একবারই খেলা হয়েছে, আর সেবারই রুপা জিতেছিল ফ্রান্স—১৯ আগস্ট ১৯০০ প্যারিস অলিম্পিকে। এর ১২০ বছর ১১ মাস ১৮ দিন পর ক্রিকেট মানচিত্রে খানিকটা জায়গা মেলে ফ্রান্সের।

গত বছরের ৫ আগস্ট জার্মানিতে ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের ইতিহাসে প্রথম আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ফ্রান্স। দেশটি এ সময়ের মাঝে ১৯৯৮ সালে আইসিসির সহযোগী সদস্য হয়, ২০০১ সালে আইসিসি ট্রফিও খেলেছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের কোনো পাতায় ফ্রান্সের নামটা স্থায়ীভাবে লিপিবদ্ধ হয়েছে আরও কিছুদিন পর।

default-image

২০২৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইউরোপের আঞ্চলিক বাছাইপর্বে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ১৮ বছর ২৮০ দিন বয়সে সেঞ্চুরি তুলে নেন ফ্রান্সের গুস্তাভ ম্যাকিওন। ভেঙে ফেলেন হজরতউল্লাহ জাজাইয়ের গড়া আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে কম বয়সে সেঞ্চুরির রেকর্ড।

পরের ম্যাচে নরওয়ের বিপক্ষেও সেঞ্চুরি করে রেকর্ড বই আরও একবার নতুন করে লেখান ম্যাকিওন। এবার প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে টানা দুই সেঞ্চুরির রেকর্ড।

এ পর্যন্ত মাত্র পাঁচটি টি-টোয়েন্টি খেলা ম্যাকিওন এই সংস্করণে টানা চার টি-টোয়েন্টি ইনিংসে সবচেয়ে বেশি রান তোলার রেকর্ডও গড়েছেন। তাঁর এই পারফরম্যান্সই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের মানচিত্রে স্থায়ী জায়গা করে দিয়েছে ফ্রান্সকে। এবার সীমানাটা আরেকটু বাড়ল।

আইসিসির ছেলেদের মাস-সেরা ক্রিকেটারের জন্য মনোনীত সংক্ষিপ্ত তিনজনের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন ম্যাকিওন। ১৮ বছর বয়সী এই ফরাসি ওপেনার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন ইংল্যান্ডের জনি বেয়ারস্টো ও শ্রীলঙ্কার প্রবাত জয়াসুরিয়ার সঙ্গে। ম্যাকিওনের মান এই তালিকা দেখে কিছুটা হলেও বোঝা যায়—সুইজারল্যান্ড, নরওয়ের মতো দলগুলো হয়তো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রতিষ্ঠিত শক্তি নয়, তবে টানা দুই ম্যাচে শতক তুলে নেওয়াও ছেলেখেলা নয়।

ম্যাকিওনের সে কারণেই উঠে এসেছেন কিছুদিন ধরে টেস্ট ক্রিকেটে রান তাড়ায় ব্যাটিংয়ের ধরন পাল্টে দেওয়া বেয়ারস্টোর সঙ্গে। প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে শ্রীলঙ্কার নতুন স্পিন নায়কের সঙ্গে।

ম্যাকিওনের শুরুটাও ছিল দুর্দান্ত। ২০২৪ আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইউরোপের আঞ্চলিক বাছাইপর্বে চেক প্রজাতন্ত্রের বিপক্ষে অভিষেক তাঁর। ৫৪ বলে ৭৬ রানে সে ম্যাচে অভিযাত্রা শুরুর পর রঙিন সময়ই কাটছে ম্যাকিওনের। শুধু ব্যাটিংয়ে নয়, বল হাতেও ৫ ম্যাচে ৪ উইকেট পেয়েছেন। এর মধ্যে নরওয়ের বিপক্ষে ম্যাচে ২৭ রানে নেন ৩ উইকেট।

জুনে মাস-সেরা হওয়া বেয়ারস্টো জুলাইয়েও দারুণ শুরু করেন। এজবাস্টনে ভারতের বিপক্ষে টানা দুই ইনিংসেই শতক তুলে নেন এবং ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে রান তাড়া করে রোমাঞ্চের জন্ম দেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজেও রান ছিল তাঁর ব্যাটে। প্রথম ম্যাচে খেলেন ৬৩ রানের ইনিংস। টি-টোয়েন্টি সিরিজে প্রথম ম্যাচে করেন ৯০। শ্রীলঙ্কার স্পিনার প্রবাত জয়াসুরিয়া গলে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ইনিংসে ৫ ও ৪ উইকেট নিয়েছেন। পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজে নেন মোট ১৭ উইকেট। এই সিরিজে ম্যাচে ৯ উইকেটও নিয়েছেন।

default-image

সব মিলিয়ে এবার মাস-সেরার জন্য মনোনীত ব্যক্তিদের তালিকায় দুজন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রতিষ্ঠিত দেশের। আরেকজন উঠতি দেশের হলেও সুযোগ কিন্তু তাঁরও আছে। ম্যাকিওন জিতলে সেই জয় কিন্তু আইসিসির সব সহযোগী দেশেরও।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন