বৃষ্টি নেই, মাঠও ঠিকঠাক বলে নেদারল্যান্ডস-জিম্বাবুয়ে ম্যাচটা হয়ে যাচ্ছে নির্বিঘ্নে। ঠিকঠাক অবশ্য নেদারল্যান্ডসের জন্য, জিম্বাবুয়ের জন্য নয়। মাত্র ১১৭ রানে অলআউট হয়ে গেছে তারা। জবাবে নেদারল্যান্ডস এগোচ্ছে নিশ্চিন্তে। ম্যাচটা ৫ উইকেটে জিতে নিয়েছে ডাচরা।

অ্যাডিলেড ওভালের দর্শক ধারণক্ষমতা ৫৩ হাজারের বেশি। তবে এই মুহূর্তে গ্যালারিতে তিন হাজার দর্শকও আছে বলে মনে হয় না। ম্যাচের আগে দেখা গেছে, জিম্বাবুয়ের দর্শকদের কয়েকটা গ্রুপ পতাকা নিয়ে হইচই করে মাঠে ঢুকছেন। এর বাইরে এখন পর্যন্ত আর যাঁরা দর্শক এসেছেন, সবই বাংলাদেশ আর ভারতের। এক টিকিটে দুই ম্যাচ দেখার সুযোগ যেহেতু আছে, একটু আগেই চলে এসেছেন তাঁরা মাঠে।

অবশ্য বাংলাদেশ আর ভারতের বেশির ভাগ দর্শক এখনো মাঠের বাইরে। অ্যাডিলেড ওভালের মূল গেটগুলো তাঁদের ‘বাংলাদেশ, বাংলাদেশ’, ‘ইন্ডিয়া, ইন্ডিয়া’ চিৎকারে সরগরম। প্রায় সবার গায়েই নিজ দেশের জার্সি, হাতে পতাকা। বাংলাদেশ ও ভারতের দুই দল সমর্থককে দেখা গেল পাশাপাশি দাঁড়িয়ে স্লোগান দিচ্ছেন, দুই দেশের পতাকা উড়ছে পাশাপাশি। ম্যাচের সময় যত ঘনিয়ে আসছে, তত মাঠের দিকে ঢুকছেন দর্শকেরা।

অ্যাডিলেড ওভালের এই যে উৎসবমুখর পরিবেশ, সেটি গত রাতেও কল্পনা করা যায়নি। প্রায় সারা রাতই থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে। সঙ্গে ছিল প্রচন্ড ঠান্ডা বাতাস। তাপমাত্রা একপর্যায়ে নেমে এসেছিল ৯ ডিগ্রিতে।

রাতের বৃষ্টি রাতেই শেষ। সকাল থেকে কড়া রোদ শহরে। বাতাসের তীব্রতাও কমে এসেছে অনেকটা। সব মিলিয়ে নরম রোদে ভেজানো মনোরম আবহাওয়া। নেদারল্যান্ডস-জিম্বাবুয়ে ম্যাচটা ঠিকঠাক হয়ে যাচ্ছে মানে আশাবাদী হওয়া যায়, বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচেও হয়তো বৃষ্টি হানা দেবে না।

কিন্তু দেশটার নাম অস্ট্রেলিয়া। এখানে আবহাওয়ার মতিগতি বোঝা শক্ত। এখন বৃষ্টি নেই ঠিক আছে, সন্ধ্যায় বাংলাদেশের খেলার সময় বৃষ্টি হলে আবার অবাকও হওয়া যাবে না। আবহাওয়ার পূর্বাভাস কিন্তু বলছে, দিনের বাকি সময়ে অ্যাডিলেডে বৃষ্টির সম্ভাবনা ৩০ শতাংশ। কাজেই বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচের কিয়দংশ বৃষ্টিতে ভিজলেও ভিজতে পারে।

তবে এখন পর্যন্ত ম্যাচটা নিয়ে অন্তত অ্যাডিলেড ওভালে কোনো শঙ্কা নেই। গ্যালারির দর্শক, প্রেসবক্সের সংবাদকর্মী—সবার চোখ নেদারল্যান্ডস-জিম্বাবুয়ে ম্যাচে থাকলেও অপেক্ষা মূলত পরের ম্যাচের জন্য। রোহিত শর্মার ভারতের মুখোমুখি হবে সাকিব আল হাসানের দল, যে ম্যাচে ভারতকে হারিয়ে অঘটন ঘটানোই লক্ষ্য বাংলাদেশের।
সেটা হলে ভারতের বিপুলসংখ্যক দর্শককে আজ বাড়ি ফিরতে হবে ভগ্ন হৃদয়ে। ম্যাচের আগে স্টেডিয়াম গেটের জটলাগুলোতে ভারতীয়দের কণ্ঠ যদিও চওড়া, তখন ‘বাংলাদেশ, বাংলাদেশ’ স্লোগানটাই অ্যাডিলডে আওয়াজ তুলবে বেশি।