২৪৬ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে অলরাউন্ডারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে দুইয়ে নবী। তাঁর চেয়ে ২০ রেটিং পয়েন্ট বেশি নিয়ে শীর্ষে উঠে এসেছেন সাকিব (২৬৬)। তিনে থাকা মঈন আলী শীর্ষ দুজনের চেয়ে বেশ বড় ব্যবধানে পিছিয়ে। ১৮৮ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তিনে ইংলিশ অলরাউন্ডার। এরপরই চমক। চার ধাপ উন্নতি করে চতুর্থস্থানে উঠে এসেছেন নামিবিয়ার তারকা জেজে স্মিট। জিম্বাবুয়ের তারকা সিকান্দার রাজাও চার ধাপ উন্নতি করে সাতে উঠে এসেছেন। দুজনেই এবার টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথম পর্বে দারুণ পারফরম্যান্স করছেন। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে ১৬ বলে ৩১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলার পাশাপাশি ১টি উইকেট নিয়েছিলেন জেজে স্মিট। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষেও নেন ২টি উইকেট। সিকান্দার রাজার আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৪৮ বলে ৮২ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন।

টি–টোয়েন্টি ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে থাকা মোহাম্মদ রিজওয়ান (৮৬১) দুইয়ে থাকা সূর্যকুমার যাদবের সঙ্গে পয়েন্ট ব্যবধান বাড়িয়েছেন (৮৩৮)। ত্রিদেশীয় সিরিজে বাংলাদেশের বিপক্ষে ৬৯ রান এবং নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৪ রানের ইনিংস খেলেন রিজওয়ান। ৮০৮ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তিনে বাবর আজম। টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে এ তিনজনের মধ্যে যে শীর্ষস্থান নিয়ে লড়াই চলবে তা বলাই যায়।

এ সংস্করণে বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়েও কিছু পরিবর্তন এসেছে। দুই ধাপ এগিয়ে পাঁচে উঠে এসেছেন আফগানিস্তানের স্পিনার মুজিব উর রেহমান। এক ধাপ এগিয়ে আটে দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিনার কেশব মহারাজ। ৭০৫ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি শীর্ষে অস্ট্রেলিয়ার পেসার জশ হ্যাজলউড। ৬৯৬ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তাঁর কাছাকাছিই আছেন আরেক আফগান তারকা স্পিনার রশিদ খান। তাঁর চেয়ে ৪ রেটিং পয়েন্ট পিছিয়ে তিনে শ্রীলঙ্কার স্পিনার ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা।