পিসিবি অবশ্য প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষায় বড় কোনো আঘাত লাগেনি বলে নিশ্চিত করেছিল। তবে শাহিনের চোটের পরিক্রমা ও বিশ্বকাপ ফাইনালে ব্যথা পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে পিসিবির সাবেক চিকিৎসক সোহাইল বলেন, অন্তত তিন থেকে চার মাসের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হবে আফ্রিদিকে। যদি অস্ত্রোপচার প্রয়োজন হয়, সে ক্ষেত্রে খেলা থেকে বিরতিকাল গড়াবে ছয় মাসে।

এর মধ্যে গত শনিবার ইসলামাবাদের হাসপাতালে ছুটে যান আফ্রিদি। সেখানে তাঁর অ্যাপেন্ডিক্সের অস্ত্রোপচার করা হয়। পিসিবির একটি সূত্র ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআইকে জানায়, আফ্রিদিকে ৬ সপ্তাহ বিশ্রামে থাকতে বলা হয়েছে। অস্ত্রোপচার–পরবর্তী বিশ্রামের পর হাঁটুর চোটের জন্য দুই সপ্তাহের পুনর্বাসনে থাকতে হবে তাঁকে।

অস্ত্রোপচার ও চোট-পরবর্তী পুনর্বাসনের কারণে আফ্রিদি পাকিস্তানের সামনের দুটি সিরিজে খেলতে পারবেন না বলে নিশ্চিত করেছে পিসিবির সূত্রটি, ‘নিশ্চিতভাবেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ টেস্ট ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২ টেস্টের সিরিজে তাঁর খেলা হচ্ছে না।’

ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট ৫টি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ। আন্তর্জাতিক দুটি সিরিজের পাশাপাশি পাকিস্তানের ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট পিএসএলও মিস করতে পারেন আফ্রিদি।

আগামী এপ্রিলের আগে পিসিবি শাহিনকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলানোর ঝুঁকি নেবে না জানিয়ে পিসিবির কর্মকর্তা বলেন, ‘পিএসএলও খেলতে পারবেন কি না, সেটি সুস্থতার ধরনের ওপর নির্ভর করছে। যদিও খেলানোর সিদ্ধান্ত ফ্র্যাঞ্চাইজিই নেবে।’