রানতাড়ায় নামা জিম্বাবুয়ের হার প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায় প্রথম ৮ ওভারেই। ৩৬ রানের মধ্যেই ৫ ব্যাটসম্যান হারায় তারা। এরপরও যে জিম্বাবুয়ের ইনিংস ১৭.২ ওভার আর ১১৫ রান পর্যন্ত পৌঁছেছে, তাতে কৃতিত্ব সিকান্দার রাজা ও রায়ান বার্লের। ষষ্ঠ উইেকট জুটিতে এ দুজন যোগ করেন ৬০ রান।

বার্ল ২২ বলে ৩৫ আর রাজা ২৪ বলে ৩৪ রান করে আউট হলে অন্যদের কেউই হাল ধরতে পারেননি। ভারতের হয়ে বল হাতে নিয়েছেন ৬ জন। কমপক্ষে ১টি করে উইকেট পেয়েছেন সব বোলারই। এর মধ্যে ২২ রানে ৩ উইকেট নিয়ে সেরা রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নামা ভারতকে পৌনে দুই শ পার করা সংগ্রহ এনে দেন সূর্যকুমার ও লোকেশ রাহুল। অধিনায়ক রোহিত ১৩ বলে ১৫ রান করে আউট হয়ে যাওয়ার পর বিরাট কোহলির সঙ্গে ৬০ রানের জুটি গড়েন রাহুল। একটু পর অবশ্য টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় ফিফটি করে রাহুলও ফেরেন (৩৫ বলে ৫১ রান)।

ভারতের ইনিংস এরপর প্রায় একাই টেনে নেন সূর্যকুমার। বিশেষ করে শেষ ৫ ওভারে। ১৫ ওভার পর্যন্ত ভারতের রান ছিল ৪ উইকেটে ১০৭। সূর্যকুমার তখন অপরাজিত ৬ বলে ৫ রানে।

কিন্তু শেষ ৩০ বলে বাউন্ডারির ঝড় বইয়ে দিয়ে ৭৯ রান তুলে নেয় ভারত, যার মধ্যে ১৯ বলে ৫৬ রানই সূর্যকুমারের। ৩২ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান শেষ পর্যন্ত ২৫ বলে ৬১ রান করে অপরাজিত থাকেন। এবারের টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এটি তাঁর তৃতীয় ফিফটি।

জিম্বাবুয়েকে হারানোর সুবাদে ৫ ম্যাচের চারটিতে জিতে ভারতের পয়েন্ট ৮। আর তিনটিতে জিতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৬ পয়েন্ট পাকিস্তানের। দক্ষিণ আফ্রিকা ৫, বাংলাদেশ ও নেদারল্যান্ডস ৪ এবং জিম্বাবুয়ে ৩ পয়েন্ট নিয়ে সুপার টুয়েলভ শেষ করল।