default-image

এমন একটা পরিস্থিতিতে কেভিন পিটারসেনও মুখ খুললেন। তিনি অবশ্য নিজের যন্ত্রণার অতীতটাই সামনে নিয়ে এসেছেন। ২০১২ সালে তিনি সীমিত ওভারের ক্রিকেট থেকে বিদায় নিয়েছিলেন। তবে এর আগে নানা বিতর্কে জেরবার ছিলেন তিনি। ইংল্যান্ড সফররত দক্ষিণ আফ্রিকা দলের ক্রিকেটারদের খুদে বার্তা পাঠানোর অভিযোগ উঠেছিল তাঁর বিরুদ্ধে। এর পরপরই তিনি ইংল্যান্ড দল থেকে বাদ পড়ে যান। তাঁর ক্যারিয়ারই শেষ হয়ে গিয়েছিল তখন।

তবে পিটারসেন সম্প্রতি এক টুইটে নিজের সঙ্গে স্টোকসের ঘটনার মিল খুঁজে নিয়েছেন, ‘আমি যখন বাজে সূচির কারণে ওয়ানডে ক্রিকেটকে বিদায় বলেছিলাম, তখন ইসিবি আমাকে টি-টোয়েন্টি থেকেও বাদ দিয়ে দিয়েছিল।’

ইংলিশ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে সব সময়ই অম্লমধুর সম্পর্ক ছিল পিটারসেনের। যদিও তিনি তাঁর সময়ে ছিলেন ইংল্যান্ডের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন। ১০৪টি টেস্ট, ১৩৬ ওয়ানডে আর ৩৭ টি-টোয়েন্টি খেলে যবনিকা পড়েছিল তাঁর ক্যারিয়ারে। টেস্টে ৮ হাজার ১৮১ রান করা এই ব্যাটসম্যান ওয়ানডেতে রান করেছেন ৪ হাজার ৪৪০। টি-টোয়েন্টিতেও হাজারের ওপর রান তাঁর। আইপিএলেও খেলেছেন একাধিক ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে।

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন