টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ কাল অ্যাডিলেডে বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টায় পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। সুপার টুয়েলভে এটাই সাকিবদের শেষ ম্যাচ। আগের ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে তুমুল লড়াই করে বৃষ্টি-আইনে ৫ রানে হেরেছে বাংলাদেশ।

ভারতের ১৮৪ রান তাড়া করতে নেমে ব্যাটসম্যানরা ভালো লড়াই করায় পাকিস্তানকে হারানোর আত্মবিশ্বাস পাচ্ছেন বাংলাদেশ দলের এই টেকনিক্যাল কনসালট্যান্ট। তবে সেমিফাইনালে যাওয়ার চাবিকাঠি বাংলাদেশের হাতে নেই। অন্য ম্যাচের ফলেও তাকিয়ে থাকতে হবে সাকিবদের।

সুপার টুয়েলভ গ্রুপ ২ থেকে পয়েন্ট টেবিলে বাংলাদেশের চেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে পাকিস্তান। দুই দল ৪টি করে ম্যাচ খেলে সমান ৪ পয়েন্ট পেলেও নেট রানরেটে বাংলাদেশের (-১.২৭৬) চেয়ে এগিয়ে পাকিস্তান (১.১১৭)। কালকের ম্যাচে বাংলাদেশ কিংবা পাকিস্তান যে দলই জিতুক, সেমিফাইনালে উঠতে তাকিয়ে থাকতে হবে অন্য ম্যাচের ফলে।

এই গ্রুপ থেকে কাল বাংলাদেশ-পাকিস্তান মাঠে নামার আগে নেদারল্যান্ডসের মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকা। ৪ ম্যাচে ৫ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দুইয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা (১.৪৪১)। সমান ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ভারত (০.৭৩০)।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আসার আগে নিউজিল্যান্ডে ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে দুবার পাকিস্তানের মুখোমুখি হয়ে হেরেছে বাংলাদেশ। একটিতে ২১ রানে, আরেকটিতে শেষ ওভারের পঞ্চম বলে ৭ উইকেটের ব্যবধানে।

দুটি ম্যাচেই বাংলাদেশের জেতার সুযোগ ছিল বলে মনে করেন শ্রীধরন শ্রীরাম। কাল পাকিস্তানের বিপক্ষে ভালো একটি ম্যাচের আশায় বললেন, ‘আমার মনে হয় পাকিস্তান খুব ভালো দল। নিউজিল্যান্ডে তাদের বিপক্ষে দুই ম্যাচেই আমাদের সুযোগ ছিল। তারা জানে আমাদের শক্তির জায়গা, আমরাও তাদেরটা জানি। আগামীকাল একটা ভালো লড়াই হবে।’

ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের হারের ম্যাচে বিরাট কোহলির ‘ফেক ফিল্ডিং’ নিয়ে বেশ বিতর্ক হচ্ছে। শ্রীরামের সংবাদ সম্মেলনেও তা নিয়ে প্রশ্ন উঠল। ভারতের হয়ে ৮টি ওয়ানডে খেলা সাবেক এ ক্রিকেটার হারের কারণ হিসেবে কোহলির ‘ফেক ফিল্ডিং’কে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে চান না, ‘আমরা কোনো অজুহাত দিতে আসিনি। ঘটনার পরপরই আমি চতুর্থ আম্পায়ারের সঙ্গে কথা বলেছিলাম। আমার মনে হয়, এটা মাঠের আম্পায়ারদের সিদ্ধান্ত, আমাদের এমনই বলেছে। এখানে কোনো অজুহাত দিতে চাই না।’

ভারতের বিপক্ষে হারলেও সেই ম্যাচ থেকে আত্মবিশ্বাস খুঁজে পাওয়ার ব্যাখ্যাও দিলেন শ্রীরাম, ‘ম্যাচের আগে যদি কেউ বলত, আমরা ভারতের সঙ্গে পাঁচ রানে হারব। এটা যে কেউ মেনে নিত। আমার মনে হয় ভারতকে হারানোর মতো একটা জায়গায় চলে গিয়েছিলাম আমরা। আমরা লাইনটা পার করতে পারিনি। কিন্তু এত কাছে আসাটা ছেলেদের অনেক আত্মবিশ্বাস দিয়েছে।’

এই হারকে খেলোয়াড়দের জন্য শিক্ষা হিসেবেই দেখছেন শ্রীরাম, ‘তারা বুঝতে পেরেছে কত বড় সুযোগ হারিয়েছে। এটা তাদের জন্য অনেক বড় শিক্ষা। দলকে এটা অনেক আত্মবিশ্বাস দেবে, ভারতের মতো দলকে চ্যালেঞ্জ জানানো আর এত কাছে আসা, আমরা খুব বেশি দূরে নেই।’