default-image

প্রতিদিনই সংবাদের শিরোনাম হচ্ছিল টেন্ডুলকারের ‘অফ ফর্ম’। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সে সিরিজে সিডনি টেস্টে তিনি ফর্মে ফেরেন ২৪১ রানের ধৈর্যশীল দীর্ঘ এক ইনিংস খেলে। না, ঠিক ‘নিজের মতো’ করে সেদিন ফর্মে ফেরেননি টেন্ডুলকার। সেই ইনিংসে টেন্ডুলকার রান করেছিলেন তাঁর প্রিয় শট কাভার ড্রাইভ না খেলেই।

টেন্ডুলকারের এই উদাহরণ দিলীপ ভেংসরকার টেনেছেন কোহলিকে পরামর্শ দিতে গিয়ে। বিরাট কোহলি দীর্ঘদিন ধরেই ফর্মে নেই। কোনো সংস্করণেই শতরান করেননি দীর্ঘ প্রায় তিন বছর। নিজেকে যেন হারিয়ে খুঁজছেন ভারতের সেরা ব্যাটসম্যান। সবশেষ ১০ ইনিংসে কোহলির রান যথাক্রমে ২০, ৭৩, ৩৫, ৭, ১১, ১, ১১, ১৬ এবং ১৭। তার ওপর কোহলি যেভাবে আউট হচ্ছেন, সেটিও চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। অফ স্টাম্পের বাইরের বল খেলতে গিয়ে বারবার আউট হচ্ছেন কোহলি।

এখন কোহলি ফর্মে ফিরবেন কীভাবে, সেটি নিয়ে নানা মুনির নানা মত। সুনীল গাভাস্কার তো বলেই দিয়েছেন, তাঁর সঙ্গে ২০ মিনিট বসলেই নাকি কোহলি ফর্মে ফিরবেন। তবে ভারতের আরেক সাবেক অধিনায়ক ও দেশটির ইতিহাসে অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ভেংসরকার ফর্মে ফিরতে টেন্ডুলকারকে উদাহরণ হিসেবে সামনে আনছেন। ভেংসরকার মনে করেন, ফর্মে ফিরতে কোহলি টেন্ডুলকারের বর্ণাঢ্য ও দীর্ঘ ক্যারিয়ারের একটি অধ্যায় সামনে খুলে বসতেই পারেন।

দুবাইভিত্তিক ইংরেজি দৈনিক খালিজ টাইমসকে তিনি বলেছেন, ‘২০০৪ সালে অস্ট্রেলিয়ায় খারাপ ফর্মে ছিল টেন্ডুলকার। একইভাবে আউট হচ্ছিল। কিন্তু সেই টেন্ডুলকারই আউট হওয়ার স্কোরিং এরিয়া পুরোপুরি বিসর্জন দিয়েছিল সিডনি টেস্টে। সে টেস্টে তার প্রিয় শট কাভার ড্রাইভ না খেলেই টেন্ডুলকার খেলেছিল ২৪১ রানের ইনিংস। বিরাটও একইভাবে আউট হচ্ছে। তারও টেন্ডুলকারকে অনুসরণ করার ক্ষমতা আছে। ফর্মে ফিরতে সেটি করে দেখতে পারে সে।’

ক্রিকেট থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন