অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও আজ নিজের সেরা বোলারকে ভারতীয় টপ অর্ডারের বিপক্ষে বোলিং করিয়েছেন। রোহিত শর্মা, কে এল রাহুল, বিরাট কোহলি, সূর্যকুমার যাদবকে নিয়ে সাজানো ভারতীয় টপ ফোরে তাসকিনকে দিয়ে ফাটল ধরানো ছিল সাকিবের পরিকল্পনা। সে জন্যই বল নতুন থাকতেই তাসকিনের ৪ ওভার শেষ করেছেন সাকিব।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণের মঞ্চে এক স্পেলে তাসকিনের চার ওভার শেষ করার কারণ জানতে চাইলে সাকিব এ ব্যাখ্যাই দিয়েছেন। তাঁর ভাষায়, ‘ভারতের ওপরের সারির চার ব্যাটসম্যানকে যদি দেখেন, ওরা কিন্তু খুবই ভয়ংকর। এ জন্যই আমরা তাসকিনকে বোলিং করিয়েছি। সে আমাদের মূল বোলার। সে উইকেটও নিচ্ছিল। পরিকল্পনাটা আসলে এটাই ছিল। আমরা যদি অল্প রানে তাদের টপ ফোরকে আউট করতে পারি, তাহলে আমরা ম্যাচটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারতাম।’

তাসকিনের দুর্ভাগ্য, দুর্দান্ত বোলিং করেও উইকেটের দেখা পাননি তিনি। অ্যাডিলেডের সবুজ গালিচায় সাদা কুকাবুরা বলটাকে কথা বলিয়েছেন। সিম, সুইংয়ের সঙ্গে হঠাৎ চমকে দেওয়া বাউন্সারে পরীক্ষা নিয়েছেন রাহুল-রোহিতদের। উইকেটও পেতে পারতেন রোহিতের। কিন্তু স্কয়ার লেগ বাউন্ডারিতে হাসান মাহমুদ ক্যাচ ফেলে দেওয়ায় সেটি হয়নি।

তবে তাসকিন প্রতিপক্ষের সেরা ব্যাটসম্যানদের হাত খুলতে দেননি। তাঁর বোলিংয়ে বাউন্ডারি এসেছে মাত্র ২টি, ডট বল ১৬টি, যার মধ্যে বেশ কয়েকটি রোহিত-রাহুলের ব্যাটের পাশ ঘেঁষে গিয়েছে উইকেটকিপার নুরুল হাসানের গ্লাভসে। সাকিব সে কারণেই ম্যাচ শেষে তাসকিনকে ‘আনলাকি’ বলছিলেন, ‘আজ তার বল ব্যাটের পাশ ঘেঁষে গেছে বেশ কয়েকবার। সে কিছুটা আনলাকি ছিল। আজ হয়তো উইকেট পায়নি। তবে রান খুব কম দিয়েছে।’

তাসকিনের মিতব্যয়ী বোলিংয়ের দিনটা আরও উজ্জ্বল হতে পারত, যদি শেষ পর্যন্ত অ্যাডিলেডে জয়ের দেখা পেত বাংলাদেশ। আজ ভারত-বাংলাদেশের দ্বৈরথের দীর্ঘ তালিকায় আরও একটি শেষ ওভারের রোমাঞ্চকর ম্যাচ যোগ হলো, যেখানে ভারতের বিপক্ষে বৃষ্টি আইনে ৫ রানে হেরেছে সাকিবের দল।

সাকিবও ম্যাচ শেষে বলছিলেন, ‘ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের সব সময়ই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জেতা হচ্ছে না। তবে এটা ঠিক, খুবই ভালো একটা ম্যাচ ছিল। দর্শকেরা উপভোগ করেছে, দুই দল উপভোগ করেছে। আমরা এটাই চাই। দিন শেষে এক দল জিতবে, এক দল হারবে।’

বাংলাদেশ দল সুপার টুয়েলভ পর্বে তাদের শেষ ম্যাচ খেলবে পাকিস্তানের বিপক্ষে। একই মাঠে আগামী রোববার ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে।

পুরো বিশ্বকাপের মতো গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচটায়ও উপভোগের মন্ত্রে খেলতে চায় বাংলাদেশ, ‘আমাদের ড্রেসিংরুম খুবই রিল্যাক্স। আমরা ক্রিকেটের আলাপ খুব কম করছি। আমরা বিশ্বকাপটা উপভোগ করতে চাই। আমরা সেটাই করছি। এ ম্যাচ খুব ভালো ছিল। আরও একটা ম্যাচ আছে। সেখানেও একই ধারা বজায় রাখতে চাইব।’