বিজ্ঞাপন
default-image

অথচ প্রথমার্ধ দেখে মনে হয়েছিল, হেসেখেলেই জিতে যাবে পর্তুগাল। ৩৬ মিনিটের মধ্যে জোড়া গোল হয়ে যায় জোতার। আক্রমণভাগে জোতা আর বের্নার্দো সিলভাকে দুই প্রান্তে নিয়ে স্ট্রাইকার পজিশনে খেলা শুরু করেছিলেন রোনালদো। উইঙ্গার ফিলিপ কসতিচকে উইংব্যাক হিসেবে খেলানোর ফলে ওই দিক থেকে রক্ষণভাগে প্রত্যাশিত সহায়তা পায়নি সার্বিয়া। ফলে ওদিক থেকেই এসেছে পর্তুগালের দুটি গোলের জোগান।

১১ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে ম্যানচেস্টার সিটির সিলভার মাপা ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে দলের প্রথম গোল করেন জোতা। ৩৬ মিনিটে আর্সেনালের রাইটব্যাক সেড্রিক সোয়ারেসের ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে দ্বিতীয় গোল করে ফেলেন জোতা।

দ্বিতীয়ার্ধে জেগে ওঠে সার্বিয়া। দুজন খেলোয়াড় পরিবর্তন করে খেলার ধরণটাই বদলে দেয় তাঁরা। শুরুতেই বিকল্প হিসেবে মাঠে নামা উইঙ্গার নেমানিয়া রাদোনিয়িচের ক্রসে মাথা ঠেকিয়ে ব্যবধান কমান স্ট্রাইকার মিত্রোভিচ। দ্বিতীয় গোলের জোগানদাতাও রাদোনিয়িচ, এবার গোল করেন কসতিচ।

ম্যাচের একদম শেষ মুহূর্তে রোনালদোর ন্যায্য গোল ভুলভাবে বাতিল করেন ডাচ রেফারি ড্যানি ডেসমন্ড ম্যাকেলি। গোলকিপার মার্কো দিমিত্রোভিচকে কাটিয়ে গোল বরাবর শট নিলেও শেষ মূহূর্তে গোললাইন থেকে বল ক্লিয়ার করেন ডিফেন্ডার স্তেফান মিত্রোভিচ। তবে রিপ্লেতে দেখা যায়, ক্লিয়ার করার আগেই বল লাইন পেরিয়েছিল, অর্থাৎ রোনালদোর গোলের দাবি ন্যায্য ছিল।

রেফারি যে শুধু গোল দেননি তাই নয়, বিরক্ত রোনালদোর প্রতিক্রিয়া দেখে তাঁকে হলুদ কার্ডও দেখান। সব মিলিয়ে রোনালদো খেপে গিয়ে অধিনায়কত্বের আর্মব্যান্ড মাঠের মধ্যে ছুঁড়ে ফেলে ড্রেসিং রুমে ঢুকে যান।

ওদিকে বাছাইপর্বের অন্যান্য ম্যাচে চেক প্রজাতন্ত্রের বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করেছে বেলজিয়াম। ম্যানচেস্টার সিটির কেভিন ডি ব্রুইনার গোল করেছেন ইন্টার মিলানের স্ট্রাইকার রোমেলু লুকাকু। রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার লুকা মদরিচের ইতিহাস গড়ার ম্যাচে আতালান্তার মিডফিল্ডার মারিও পাসালিচের গোলে সাইপ্রাসকে ১-০ গোলে হারিয়েছে ক্রোয়েশিয়া। এই ম্যাচ খেলে সাবেক ডিফেন্ডার দারিও সরনাকে সরিয়ে ক্রোয়েশিয়ার ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলা ফুটবলার হয়ে গেছেন মদরিচ (১৩৫)।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন