default-image

গত বছর বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে নাম লেখানোর আগে মেসির বেতন কমেছিল। এরপরও ফোর্বসের তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছেন তিনি। প্যারিসের ক্লাব পিএসজির সঙ্গে আকর্ষণীয় চুক্তি আর মাঠের বাইরের বিজ্ঞাপনী চুক্তি থেকে আয়ে এনবিএ কিংবদন্তি লেব্রনকে ছাড়িয়ে যেতে পেরেছেন সাতটি ব্যালন ডি’অর জয়ী মেসি।
ফোর্বসের তালিকা অনুযায়ী শীর্ষ দশে থাকা কোন অ্যাথলেটের আয় কত, একনজরে তা দেখে নেওয়া যাক—

১. লিওনেল মেসি, ফুটবলার, পিএসজি

আয়: ১৩ কোটি ডলার

পিএসজিতে আর্জেন্টাইন তারকার বেতনের অঙ্কটা বেশ বড়। এর সঙ্গে আছে অ্যাডিডাস, বার্ডওয়াইজার ও পেপসিকোর সঙ্গে চুক্তি তাঁর আয়ের অঙ্কটা অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে। তা ছাড়া সোসিওসের সঙ্গে ২ কোটি ডলারের চুক্তি তো আছেই।

২. লেব্রন জেমস, এনবিএ, লস অ্যাঞ্জেলেস লেকার

আয়: ১২ কোটি ১২ লাখ ডলার

যুক্তরাষ্ট্রের তারকা বাস্কেটবল খেলোয়াড় এখন বড় পর্দার তারকাও। ‘স্পেস জ্যাম: আ নিউ লিগ্যাসি’ সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। ‘দ্য শপ’ নামে একটি জনপ্রিয় টক শো–ও করেন লেব্রন, যেটি এইচবিও থেকে ইউটিউবে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ২০২১ সালের অক্টোবরে তিনি তাঁর স্প্রিংহিল কোম্পানির একটা অংশ বিক্রি করেছেন, যার মূল্য ছিল ৭২ কোটি ৫০ লাখ ডলার। এ বছরের জানুয়ারিতে লেব্রন ক্রিপটোডটকমের সঙ্গে চুক্তির কথা ঘোষণা করেন।

default-image

৩. ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, ফুটবলার, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড

আয়: ১১ কোটি ৫০ লাখ ডলার

পাঁচটি ব্যালন ডি’অর জয়ী পর্তুগিজ ফুটবলার গত বছর সাবেক ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ফিরেছেন আকর্ষণীয় বেতন–বোনাসের চুক্তি করে। তবে রোনালদোর বড় আয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে। সব মিলিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রোনালদোর অনুসারী ৬৯ কোটি। এর কারণেই তিনি নাইকি, হার্বালাইফ ও ক্লিয়ার শ্যাম্পুর সঙ্গে স্পনসর চুক্তি থেকে বেশ আয় করে যাচ্ছেন। তিনি আয় করছেন তাতেল রেস্তোরাঁ থেকেও।

৪. নেইমার, ফুটবলার, পিএসজি

আয়: ৯ কোটি ৫০ লাখ ডলার

পিউমা ও রেড বুলের মতো বেশ কয়েকটি বড় স্পনসর চুক্তি আছে নেইমারের। নেটফ্লিক্স ডকুসিরিজ হয়েছে তাঁকে নিয়ে, আয় করছেন সেখান থেকেও। এনফটিস্টারের সঙ্গেও চুক্তি করেছেন নেইমার।

৫. স্টেফান কারি, এনবিএ, গোল্ডেন স্টেট ওয়ারিয়র্স

আয়: ৯ কোটি ২৮ লাখ ডলার

গত বছর গোল্ডেন স্টেট ওয়ারিয়র্সের সঙ্গে চার বছরের জন্য ২১ কোটি ৫০ লাখ ডলারের চুক্তি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের এনবিএ তারকা। এফটিএক্সের সঙ্গে বিজ্ঞাপনী চুক্তি আছে তাঁর। আরও অনেক বিজ্ঞাপনী চুক্তির মধ্যে আছে মিডিয়া কোম্পানি আনঅ্যানিমাস মিডিয়ার সঙ্গে চুক্তি।

৬. কেভিন ডুরান্ট, এনবিএ, ব্রুকলিন নেটস

আয়: ৯ কোটি ২১ লাখ ডলার

নাইকি তাদের ব্র্যান্ডের প্রচারের জন্য ডুরান্টের সঙ্গে ২ কোটি ৮০ লাখ ডলারের চুক্তি করেছে। কয়েনবেইস, এনবিএ টপ শট ও উইডম্যাপসের সঙ্গেও তাঁর চুক্তি আছে। বোর্ডরুম নামে একটি মিডিয়া কোম্পানি আছে ডুরান্টের, আছে থার্টি ফাইভ ভেনচার্স নামের ইনভেস্টমেন্ট ফার্ম।

৭. রজার ফেদেরার, টেনিস খেলোয়াড়, সুইজারল্যান্ড

আয়: ৯ কোটি ৭ লাখ ডলার

অনেক বছর ধরেই রোলেক্স ও ইউনিক্লোর সঙ্গে স্পনসর চুক্তি আছে রজার ফেদেরারের। ২০১৯ সালে সুইস জুতার ব্র্যান্ড ‘অন’–এ অর্থলগ্নি করেছেন। ২০২১ সালে এই কোম্পানির আয় পৌঁছেছে ৬০ কোটি ডলারে।

৮. ক্যানসেলো আলভারেজ, বক্সার, মেক্সিকো

আয়: ৯ কোটি ডলার

পে–পার–ভিউ নামের একটি ইভেন্ট থেকে ৪ কোটি ডলারের বেশি আয় করেছেন মেক্সিকান বক্সার। রিংয়ের বাইরে তাঁর আয়ের বড় একটা অংশ আসে ওয়াইন প্রস্তুতকারক কোম্পানি হেনেসি থেকে। এ ছাড়া তাঁর আছে চেইন রেস্তোরাঁ।

৯. টনি ব্র্যাডি, এনএফএল, চাম্পা বে বাকেনেয়ার্স

আয়: ৮ কোটি ৩৯ লাখ ডলার

আমেরিকান ফুটবলের সর্বকালের অন্যতম সেরা তারকা অবসরের কথা ভাবছেন। এটা শোনার সঙ্গে সঙ্গেই ফক্স স্পোর্টস তাঁর সঙ্গে বিশ্লেষক হিসেবে চুক্তি করেছে। তাঁর সেই চুক্তি ৩৭ কোটি ৫০ লাক ডলারের। ‘১৯৯ প্রোডাকশন’ নামে একটি প্রোডাকশন কোম্পানিও আছে তাঁর। ব্র্যাডি নামে একটি পোশাক প্রস্তুতকারী কোম্পানিও আছে।

১০. জিয়ানিস আন্তেতোকোনম্পো, এনবিএ, মিলাউকি বাকস

আয়: ৮ কোটি ৯ লাখ ডলার

ফোর্বসের সর্বোচ্চ আয়ের ক্রীড়াবিদদের তালিকার সেরা দশের সর্বকনিষ্ঠ সদস্য গ্রিক এই বাস্কেটবল খেলোয়াড়। ২০২০ সালে মিলাউকির সঙ্গে পাঁচ বছরের জন্য ২২ কোটি ৮০ লাখ ডলারের চুক্তি করেছেন তিনি। এ ছাড়া তিনি আয় করেন এনএফটি প্ল্যাটফর্ম এনএফটিস্টার থেকে। হোয়াটসঅ্যাপ ও গুগল পিক্সেলের সঙ্গেও বিজ্ঞাপনী চুক্তি আছে তাঁর।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন