২০১৮-১৯ মৌসুমে ধুঁকছিল মোহামেডান। প্রথম পর্ব শেষে পয়েন্ট টেবিলের নিচের দিকে ছিল। অনেক সমর্থকের মনে তো মোহামেডানের অবনমন শঙ্কাও পেয়ে বসেছিল। দ্বিতীয় পর্বে দলে যোগ দিয়ে মোহামেডানকে উদ্ধার করেন লেনই। প্রথম পর্বে আবাহনীর কাছে ৩-০ গোলে হারা মোহামেডান দ্বিতীয় পর্বে লেনের অধীন আবাহনীর বিপক্ষে জেতে ৪-০ গোলে। তবে সর্বশেষ বাতিল হওয়া লিগে মোহামেডানকে পাল্টা ৪-০ গোলে হারিয়েছে মারিও লেমোসের আবাহনী।

এত দিন বাংলাদেশে থেকে আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচের বাড়তি আমেজটা ভালোই টের পাচ্ছেন লেন। তাই আবাহনীকে পাওয়ায় নিজেও রোমাঞ্চিত, ‘মোহামেডান ও আবাহনী চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুটি দল। দর্শকেরা এই দুটি দলের খেলা দেখার জন্য উন্মুখ হয়ে থাকে। আবাহনীকে গ্রুপে পেয়ে ভালো লাগছে। ভালো ম্যাচ হবে আশা করি।’

default-image

১৩ দলের ফেডারেশন কাপে চারটি গ্রুপ। গ্রুপ ‘বি’ ছাড়া প্রতিটি গ্রুপেই তিনটি করে দল। গ্রুপ ‘এ’-তে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র ও শেখ জামাল ধানমন্ডির সঙ্গে বাংলাদেশ পুলিশ ক্লাব। সাইফ স্পোর্টিং, আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ, ব্রাদার্স ইউনিয়ন ও উত্তর বারিধারা ক্লাব নিয়ে গ্রুপ ‘বি’।

গ্রুপ ‘সি’-তে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস ও রানার্সআপ রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডসের সঙ্গে চট্টগ্রাম আবাহনী। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ হিসেবে কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট পাবে দুটি দল, সেখানে গত মৌসুমের ফেডারেশন কাপ চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা ও রানার্সআপ রহমতগঞ্জের পাশে মারুফুল হকের চট্টগ্রাম আবাহনীকে নিয়ে গড়া গ্রুপ ‘সি’কেই ভাবা হচ্ছে ‘মৃত্যুকূপ’।

এ ছাড়া শেষ পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধা খেলতে না পারলে গ্রুপ ‘বি’ থেকে উত্তর বারিধারা এসে যোগ হবে আবাহনী-মোহামেডানের সঙ্গে গ্রুপ ‘ডি’তে। কারণ, চ্যাম্পিয়নশিপ লিগ থেকে রানার্সআপ হয়ে প্রিমিয়ারে উত্তীর্ণ হওয়া বারিধারাকে নিয়ে একমাত্র চার দলের গ্রুপ ‘বি’।

তবে সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, টুর্নামেন্টে খেলা নিয়ে সংশয় নেই আর্থিক অনটনে থাকা মুক্তিযোদ্ধার। এরই মধ্যে মালয়েশিয়ার কোচ রাজা ইসাকে চূড়ান্ত করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন ক্লাবের ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম। ২১ ডিসেম্বরের মধ্যে ঢাকায় পা রাখার কথা তাঁর। ৫৪ বছর বয়সী এই কোচ মালয়েশিয়া ছাড়াও ইন্দোনেশিয়ার বিভিন্ন দলের হয়ে কোচিং করিয়েছেন।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন