দ্বিতীয় বিভাগে লিডসকে চ্যাম্পিয়ন করেই শীর্ষ বিভাগে এনেছেন বিয়েলসা।
দ্বিতীয় বিভাগে লিডসকে চ্যাম্পিয়ন করেই শীর্ষ বিভাগে এনেছেন বিয়েলসা। ছবি: টুইটার

লুকাস মুনিয়া অ্যাগিলার। মেসিদের দেশে একদম এক-দুই যুগ আগে থেকে কেউ যদি ইংলিশ ক্লাব লিডস ইউনাইটেডের ভক্ত হয়ে থাকে, তাহলে অ্যাগিলারের নাম সবার ওপর দিকেই থাকবে। সেই হ্যারি কিউয়েল, অ্যালান স্মিথ, মার্ক ভিদুকারা যখন থেকে খেলতেন, তখন থেকে।

এরপর কত কিছু হয়ে গেল। আর্থিক দুরবস্থার বলি হয়ে লিডস অবনমিত হয়ে গেল। নেমে গেল দ্বিতীয় বিভাগে। লিডসের প্রতি অ্যাগিলারের দরদ কমল না মোটেও, বরং বাড়ল। টুইটারে একটা অ্যাকাউন্ট খুললেন, ‘লিডস আর্জেন্টিনা’ নামে। আস্তে আস্তে সে অ্যাকাউন্টে অনুসরণকারীদের সংখ্যা বাড়তে থাকল। এক, দুই করে ২০০ ছাড়াল।

বিজ্ঞাপন
default-image

একদিন হুট করে সে অ্যাকাউন্টে অনুসরণকারীর সংখ্যা বাড়তে থাকল হু হু করে। শুধু এক সপ্তাহান্তেই অনুসরণকারী বাড়ল দেড় হাজার। খোদ হাভিয়ের মাচেরানোও অনুসরণ করা শুরু করলেন এই অ্যাকাউন্ট।

কারণ? মার্সেলো বিয়েলসা!

আজ বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১০ টায় লিভারপুলের মুখোমুখি হবে লিডস
বিজ্ঞাপন

বিয়েলসার মহিমাটাই এমন। অর্জনের ভাঁড়ারে তেমন কিছু না থাকলেও কোচিংয়ের ধরন ও উদ্ভাবনী শক্তি দিয়ে বছরের পর বছর মুগ্ধ করে চলেছেন সবাইকে। তাঁর প্রভাব এতটাই বেশি, খোদ পেপ গার্দিওলা থেকে শুরু করে মরিসিও পচেত্তিনো, হোর্হে সাম্পাওলি, ডিয়েগো সিমিওনে, মার্সেলো গ্যালার্দো—সবাই কিছু না কিছু শিখেছেন বিয়েলসার জ্ঞানভান্ডার থেকে।

সে বিয়েলসার হাত ধরেই লিডস ষোলো বছর পর আজ প্রথমবারের মতো প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ খেলতে নামছে। প্রতিপক্ষ আর কেউ নয়, খোদ চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল। সালাহ-মানে-ফিরমিনোদের বিপক্ষে শিষ্যদের যখন মাঠে নামাবেন বিয়েলসা, টিভি পর্দায় চোখ থাকবে হাজারো আর্জেন্টাইন ফুটবলপ্রেমীদেরও।

লিডস যে এখন আর্জেন্টিনার অন্যতম জনপ্রিয় ক্লাব!

মন্তব্য পড়ুন 0