বিজ্ঞাপন
default-image

রেনে হিগুইতা

কলম্বিয়ার সেই ‘পাগলা’ গোলরক্ষককে সহজে ভুলে যেতে পারবেন না ফুটবলপ্রেমীদের অন্তত কয়েকটি প্রজন্ম। ভাবা যায়, পেশাদারি ক্যারিয়ারে তাঁর ৪১ খানা গোল আছে। তাঁকে ‘পাগলা গোলরক্ষক’ বলা হয় তাঁর প্রচণ্ড ঝুঁকি নেওয়ার প্রবণতার কারণে। মাঝেমধ্যে এমন ঝুঁকি নিতেন, যাতে সমর্থকদের আত্মা শুকিয়ে যাওয়ার অবস্থা ঘটত। সুইপার হিসেবে রক্ষণভাগের একজন হয়ে তিনি খেলতেন। অনেক সময় ভূমিকা রাখতেন শেষ রক্ষণসেনার। অচিন্তনীয় সব সেভের জন্য তিনি বিখ্যাত হয়ে উঠেছিলেন। বল হাত দিয়ে গ্রিপ না করে ‘স্করপিয়ান’ স্টাইলে দুই পা পেছনে বেঁকিয়ে গোল লাইন থেকে বল ফিরিয়ে দেওয়ার দৃশ্যটি তো ফুটবলের চিরদিনের দৃশ্যগুলোর একটি। ক্যারিয়ারে কোপা লিবার্তোদোরেসসহ অসংখ্য ট্রফি জিতেছেন। তবে হিগুইতা ফুটবল হল অব ফেমে অমর হয়ে থাকবেন আরও একটা মুহূর্তের জন্য। ১৯৯০ বিশ্বকাপে ক্যামেরুনের বিপক্ষে সুইপার ডিফেন্ডারের ভূমিকা রাখার সময় রজার মিলার কাছে বল হারিয়ে দলকে ডুবিয়েছিলেন।

default-image

হোসে লুই চিলাভার্ট

তিনি রেনে হিগুইতারই আরও এক সংস্করণ ছিলেন। তবে গোল করায় তিনি ছাপিয়ে গিয়েছিলেন কলম্বিয়ান গোলরক্ষককেও। প্যারাগুইয়ান এই কিপার তাঁর পেশাদার ক্যারিয়ারে গোল করেছেন ৬৭টি। তাঁর অসাধারণ ব্যাপার ছিল নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা। দলের খেলোয়াড়দের সবার পেছনে থেকেও তিনি ছিলেন সবার চেয়ে এগিয়ে। ফ্রি কিক থেকে গোল করাকে তিনি রীতিমতো প্রবাদের পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি হ্যাটট্রিকও করেছেন। যে কৃতিত্ব আর কোনো গোলরক্ষকেরই নেই। ক্যারিয়ারে আটটি আন্তর্জাতিক গোল করে নিজেকে নিয়ে গেছেন কিংবদন্তির কাতারে। গোলরক্ষক হিসেবে তাঁর সেভগুলোরও তুলনা হয় না। অসম্ভব সব সেভ তাঁকে বানিয়েছেন একজন পরিপূর্ণ ফুটবলার।

default-image

হোর্হে ক্যাম্পোস

১৯৯৪ বিশ্বকাপে ফুল আঁকা রঙিন বাহারি জার্সিতে ব্যাপক আলোচিত ছিলেন ছোটখাটো গড়নের এই মেক্সিকান গোলরক্ষক। ফুটবল মাঠে গোলরক্ষকদের জার্সিতে বিপ্লবই ছিল তাঁর সেই ফ্যাশন। নব্বইয়ের দশকে যখন প্রায় সব গোলরক্ষকই ফুলহাতা জার্সি পরে খেলতেন, তখন ক্যাম্পস পরতেন হাফহাতা জার্সি। সে জার্সিও ছিল শরীরের মাপের চেয়ে একটু বড়। বল পায়ে নিয়ে অবলীলায় এগিয়ে যেতেন তিনি। প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের একে একে কাটিয়ে আক্রমণ রচনা করতেন। সেট পিসগুলোতে পোস্ট ছেড়ে প্রতিপক্ষের বক্সে এসে ওত পেতে থাকতেন গোল করার জন্য। পেনাল্টি বিশেষজ্ঞ হিসেবেও দুভাবেই বিখ্যাত ছিলেন। পেনাল্টি তো ঠেকাতেনই, পেনাল্টি থেকে গোল করতে ডাক পড়ত তাঁরই। মেক্সিকোর হয়ে জিতেছেন আন্তর্জাতিক ট্রফিও।

default-image

রজেরিও চেনি

অনেকেই তাঁকে গোলরক্ষকদের ‘মেসি’ বলতে পছন্দ করেন। ব্রাজিলীয় ক্লাব সাও পাওলোর এই গোলরক্ষক তাঁদের হয়েই গোল করেছেন ১৩১টি! ২২ বছরের ক্যারিয়ারে ৬০টির বেশি ফ্রি কিক গোল আর ৭০টি পেনাল্টি থেকে গোল আছে চেনির। গোলরক্ষক হিসেবে গোল করার ব্যাপারে তাঁর সেরা সময় ছিল ২০০৫ থেকে ২০০৭ সালের মধ্যকার সময়টি। এ সময় তিনি ৪৫টির বেশি গোল করেছিলেন একাই। মজার ব্যাপার হচ্ছে, এ সময় সাও পাওলোর মূল স্ট্রাইকারদের গোল সাকল্যে ১৫টিও ছিল না। চেনিই ফুটবল ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি গোল করা গোলরক্ষক। তাঁর ধারেকাছেও নেই কেউই।

default-image

দিমিতার ইভানকভ

বুলগেরিয়ান গোলরক্ষক দিমিতার ইভানকভ। জাতীয় দলে একসময় ১ নম্বর জার্সি নিয়ে তাঁর তীব্র লড়াই হতো অন্যের সঙ্গে। জ্রাদকো জ্রাদকভ নামের সেই গোলরক্ষক পিছিয়ে পড়েছিলেন অনেক জায়গাতেই। যে গোলরক্ষক দলে থাকলে একজন ডিফেন্ডার কিংবা একজন স্ট্রাইকারের অভাব অনুভূত হয় না, সে তো যেকোনো দলের জন্যই সম্পদ। ইভানকভ ছিলেন তেমনই এক গোলরক্ষক। তিনি গোল ঠেকাতেন দুর্দান্ত। গোলও করতেন নিয়মিত। পেশাদারি ক্যারিয়ারে তাঁর গোলসংখ্যা ৪২। পেনাল্টি থেকে গোল করার ব্যাপারে ছিলেন দুর্দান্ত।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন