বিজ্ঞাপন

বার্সা সভাপতি লাপোর্তা কিছুদিন আগেই গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ক্লাবে অদল–বদল আনতে যাচ্ছেন। আর স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুসারে কোমানের জায়গা নিতে যাচ্ছেন বার্সার সাবেক মিডফিল্ডার জাভি হার্নান্দেজ।

আগামীকাল লিগে নিজেদের শেষ ম্যাচে বার্সেলোনা মুখোমুখি হবে এইবারের। এই ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে কোমান তাঁর ক্ষোভ উগরে দিলেন, ‘শেষ মাসে (মৌসুমের) কোচ ও ফুটবলারদের প্রতি আরও বেশি সম্মান দেখানো দরকার। কিছু ব্যাপার সংবাদমাধ্যমে এসেছে এবং ওদের (খেলোয়াড়দের) এটা প্রাপ্য না। অনেক কিছুই হয়েছে, যা ভিন্নভাবে করা যেত।’

default-image

গত বছর আগস্টে ক্যাম্প ন্যুতে পা রাখতে না রাখতেই বার্সেলোনার রাজনীতির উত্তাপ টের পেয়েছিলেন কোমান। টালমাটাল পরিস্থিতির মধ্যে নিজেকে যথাসম্ভব মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টাও করেছেন এত দিন।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত হয়তো হাল ছেড়েই দিতে হচ্ছে তাঁকে। স্পেনে বার্সেলোনার সমর্থকদের পাশাপাশি সংবাদমাধ্যমের চাপটাও যে প্রচণ্ড, সেটা মেনে নিয়ে বললেন, ‘আমি জানি এখানে প্রচণ্ড চাপ। এবং আমি সেটা মেনেও নিয়েছি। কিন্তু মাঝেমধ্যে আমার মনে হয় এই দেশে (স্পেনে) কোচের ভবিষ্যৎ নির্ধারণে সংবাদমাধ্যম খুব বেশি জড়িত হয়ে পড়ার সংস্কৃতি আছে, যা আমার চোখে খুবই অসম্মানের একটা ব্যাপার।’

এরপরই ক্লাবের পরিচালকদের উদ্দেশে ক্ষোভ ঝেড়েছেন ৫৮ বছর বয়সী কোচ, ‘মৌসুমের শেষ ভাগে এসে আমি ক্লাবের কোনো সমর্থন পাইনি। আমরা ভবিষ্যৎ নিয়ে কথা বলিনি। এমনও অনেক সময় গেছে যখন আমাকেই ক্লাবের মুখপাত্র হিসেবে কথা বলতে হয়েছে। এবং ওটাও তাদের খেয়াল করা উচিত ছিল।’

ইউরোপে আবারও সমীহ জাগানো শক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চায় বার্সেলোনা। আর সেটা করতে যে স্কোয়াড সাজাতে হবে, সেটা জানা আছে কোমানের।

কিন্তু এ প্রক্রিয়াটা আরও স্বচ্ছভাবে করা যেত বলেই তাঁর বিশ্বাস, ‘আমি জানি ট্রফি জেতার জন্য আমাদের বেশ কিছু পরিবর্তনের দরকার। এবং এ জন্য যদি নতুন কোচ বা খেলোয়াড় আনতে হয়, সেটাও ঠিক আছে। কিন্তু সেটা তো পরিষ্কারভাবে জানাতে হবে। সত্যি বলছি, আমি জানি না যে কোচ হিসেবে আমি থাকব কি না। আমি সভাপতির সঙ্গে এটা নিয়ে কথা বলিনি।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন