জন্মদিনের উপহারটা উল্টো জুভেন্টাসকেই দিলেন রোনালদো

সাধারণত যার জন্মদিন হয়, তাকেই সবাই উপহার দেয়। স্মরণীয় দিনটাকে আরও স্মরণীয় করে তোলে। সে হিসাবে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর জন্মদিনে তাঁর ক্লাব জুভেন্টাস তাঁকে কী উপহার দিয়েছে, সেটা জানা যায়নি। উল্টো রোনালদোই ক্লাবকে জন্মদিনের পরের দিন উপহার দিলেন মহামূল্যবান এক জয়। সিরি‘আ’র গুরুত্বপূর্ণ এক ম্যাচে জুভেন্টাস গত রাতে রোমাকে হারিয়েছে ২-০ গোলে। গোল পেয়েছেন ৩৬ বছর বয়সের এই চিরতরুণ।

নয় বছর ধরে লিগ জেতা জুভেন্টাস এবার লিগের শীর্ষে নেই। দুই মিলানি ক্লাবের দাপটে এবার বেশ পেছনেই পড়ে আছে। ধীরে ধীরে ওপরে ওঠার চেষ্টা করছে। সে চেষ্টার বড় এক প্রমাণই এই জয়। এতে রোমাকে হটিয়ে পয়েন্ট তালিকার তৃতীয় স্থানে চলে এসেছে জুভেন্টাস। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এই নিয়ে টানা ছয় ম্যাচ জিতল জুভেন্টাস।

তবে মাঠের খেলায় কিন্তু দাপট দেখিয়েছে রোমাই। পাওলো ফনসেকার অধীনে দুর্দান্ত ফুটবল খেলা দলটা এই ম্যাচেও বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিল। প্রেসিং ফুটবলের দুর্দান্ত প্রদর্শনীই ছিল এটি। কিন্তু দিন শেষে খেলাটা যে গোলের। ওটাই শেষ পর্যন্ত রোমার হারের কারণ। দৃষ্টিনন্দন ফুটবল, কার্যকরী ফুটবলে সাফল্য অর্থহীন, যদি দিন শেষে গোলই না আসে—এ ব্যাপারটা রোমা কাল ভালোই বুঝেছে।

default-image
বিজ্ঞাপন

ম্যাচের ১৩ মিনিটেই জুভেন্টাসকে এগিয়ে দেন রোনালদো। স্প্যানিশ স্ট্রাইকার আলভারো মোরাতার পাস নিয়ে বক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত প্লেসমেন্টে দলকে এগিয়ে দেন সদ্যই ৩৬-এ পা দেওয়া এই তারকা।

গোলটা এসেছেও বাঁ পা থেকে, রোনালদোর যে পাকে অপেক্ষাকৃত দুর্বল বলে মনে করেন অনেকে। ৩৬ বছর বয়সে এসেও বাঁ পায়ে গোল করার মাধ্যমে যেন নিন্দুকদের দেখিয়ে দিলেন রোনালদো। তিরিশে পা দেওয়ার পর এ নিয়ে ৩০০ গোল পর্তুগিজ তারকার, অনেক খেলোয়াড় গোটা ক্যারিয়ারে এত গোল করতে পারলেই বর্তে যান!

default-image

পরে হাজারো চেষ্টা করেও গোল করতে পারেনি রোমা। গোটা ম্যাচে গোল বরাবর জুভেন্টাস শট নিয়েছে ৩টি, রোমা ১৪টি। কিন্তু দুই সেন্টারব্যাক জর্জো কিয়েল্লিনি ও লিওনার্দো বোনুচ্চি যেন চীনের প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়ে গিয়েছিলেন। উল্টো রোমার ব্রাজিলিয়ান সেন্টারব্যাক রজার ইবানিয়েজ আত্মঘাতী গোল করে দলের হিসাব আরও কঠিন করে ফেলেন। পরে দলের অধিনায়ক বসনিয়ান স্ট্রাইকার এডিন জেকো মাঠে নেমেও রোমার ভাগ্য বদলাতে পারেননি। পূর্ণ ৩ পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছেড়েছে জুভেন্টাস।

২১ ম্যাচে ৪৭ পয়েন্ট নিয়ে এখনো শীর্ষে ইন্টার মিলান। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে থাকা এসি মিলান ও জুভেন্টাস অবশ্য একটি করে ম্যাচ কম খেলেছে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন