বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর ৫৩ থেকে ৫৫ – তিন মিনিটে লিভারপুলের দুই গোলের পথে অবশ্য ভাগ্যেরও ছোঁয়া আছে। ৫৩ মিনিটে প্রথম গোলটিই যে আত্মঘাতী! ডানদিক থেকে লিভারপুল অধিনায়ক জর্ডান হেন্ডারসনের ক্রস ভিয়ারিয়ালের লেফটব্যাক এস্তুপিনিয়ানের পায়ে লেগে দিক বদলে যায়, গেছে তো গেছে জালের দিকেই! ক্রস আসবে ভেবে আগেই জায়গা ছেড়ে কিছুটা সরে যাওয়া ভিয়ারিয়ালের গোলকিপার রুলির পড়িমরি ঝাঁপিয়েও আর বলটা জালে যাওয়া ঠেকাতে পারলেন না।

এর আগ পর্যন্ত ভিয়ারিয়ালের জমাট রক্ষণের সামনে গোলের জন্য হাপিত্যেশ করে যাওয়া লিভারপুল দ্বিতীয় গোলটি পেয়ে গেল দুই মিনিট পর। বক্সের ঠিক ওপরে সালাহ আর মানের দারুণ সমন্বয়ের ফল। সালাহ বল পেতেই বক্সের দিকে দৌড় শুরু করেন মানে, এক ডিফেন্ডারের পায়ের ফাঁক গলে বুটের ডগার ছোঁয়ায় থ্রু বাড়ান সালাহ। বুটের ডগা ছুঁইয়েই গোল মানের।

গোলটি ইউরোপিয়ান কাপ ও চ্যাম্পিয়নস লিগে বাছাইপর্বসহ হিসেব মিলিয়ে লিভারপুলের ৪৫০তম। শেষ পর্যন্ত মাইলফলক হয়ে থাকা গোলটিই লিভারপুলকে দিয়েছে স্বস্তি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন