বিজ্ঞাপন

চার-পাঁচ বছর বয়স কিংবা তারও আগে থেকে খেলা শুরু করেন মেসি। দাদির হাত ধরে মাঠে আসার পটভূমিটা বলেছেন তিনি, ‘আমাদের এক কাজিন (ফুটবল) খেলত। ভিন্ন বয়সের হওয়ায় আমরা প্রায় প্রতিদিনই সেখানে যেতাম। একবার ’৮৬ সালে জন্ম নেওয়া কিছু ছেলে খেলছিল। অর্থাৎ আমার চেয়ে এক বছরের বড় আরকি। তাদের একজন খেলোয়াড়ের প্রয়োজন ছিল—আমার দাদি কোচকে বললেন “ওকে নিয়ে নিন।” না, আমি কীভাবে তাকে দলে নেব, সে কত ছোট দেখেছেন! আঘাত পাবে—কোচ বলেছিলেন। কিন্তু দাদি অনড়—অনবরত বলছিলেন “নিয়ে নিন, নিয়ে নিন।”’

default-image

শৈশবে মেসি কাজিনদের সঙ্গে খেলা শুরুর সুযোগও পেয়ে গেলেন। এরপর মেসির দাদি কোচকে গিয়ে বললেন, ‘ওকে ফুটবল বুট কিনে দাও। আগামী সপ্তাহ থেকে ওকে অনুশীলনে নিয়ে যাব। এরপরই সব শুরু হলো। সময়টা অসাধারণ ছিল।’

খুব অল্প বয়সে মেসিকে অনুশীলনে নিয়ে যেতেন তাঁর দাদি। বার্সা তারকা ১০ বছর বয়সে থাকতে ভালোবাসার দাদিকে হারান।

default-image

ফুটবলের সঙ্গে সখ্য ঠিক কবে গড়ে উঠেছিল, তা মেসির ভালোভাবে মনে নেই। সাক্ষাৎকারে শুধু এতটুকু বললেন, ‘এমনকি ৪-৫ বছর বয়সের আগেও আমি বল নিয়ে খেলতাম। ঠিক যখন থেকে হাঁটতে শিখেছি। মনে আছে প্রথম ম্যাচটা ছিল গ্রান্দোল্লিতে (রোজারিও)। আমার চেয়ে বয়সে বড় কাজিনরা ছিল। সবাই একত্র হলেই খেলতে নামতাম। প্রথম কবে বল নিয়ে খেলেছি, তা মনে পড়ছে না। তবে এটা ঠিক খুব অল্প বয়স থেকেই খেলা শুরু করি। ৪ বছর বয়সে খেলা শুরু করেছি ক্লাবে, রাস্তায়—সব সময় শুধু খেলেছি।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন