default-image

অপেক্ষাকৃত দুর্বল বিমানবাহিনীর বিপক্ষে জোড়া গোল করলেও তাঁর পারফরম্যান্স দর্শকদের মন ভরানোর মতো হয়নি। যত সুযোগ পেয়েছেন, তাতে হ্যাটট্রিক হতে পারত অনায়াসেই।

পর্তুগালের রুতি তাবারেজ ও এইলতনকে সামনে রেখে ৪–৪–২ ছকে একাদশ সাজিয়েছিলেন শেখ রাসেল কোচ সাইফুল বারী। দুজনের মধ্যে বোঝাপড়ার অভাব ছিল স্পষ্ট। ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের বিশ্লেষণে গেলে দুজনের পায়ে গোল করার মতো কারিশমা সেভাবে দেখা যায়নি। ৮ মিনিটে শেখ রাসেলের এগিয়ে যাওয়া ভাগ্যক্রমে।

default-image

বক্সের বাইরে থেকে মোহাম্মদ জুয়েলের শট বিমানবাহিনীর গোলকিপার মজনু মিয়া গ্রিপে নিতে না পারায় বল ছিটকে গিয়ে পড়ে এইলতনের সামনে। টোকা দিয়ে গোলের খাতা খুললেন ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার। ২২ মিনিটেই ব্যবধান ২–০। এবার বক্সে ঢুকে শট নিয়ে গোলটি করেছেন এইলতনই।

প্রথমার্ধেই ২–০ গোলে এগিয়ে যাওয়া শেখ রাসেল দ্বিতীয়ার্ধে কোনো গোলই করতে পারল না। ম্যাচের শেষের দিকে গোলকিপারকে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি এইলতন।

বিমানবাহিনী দলে স্ট্রাইকার সুমন রেজা ও মাহুদুদ হোসেন ছাড়া পরিচিত কোনো খেলোয়াড় নেই। এমন দলই দু-একবার পরীক্ষা নিয়েছে শেখ রাসেল গোলকিপার আশরাফুল রানার।

default-image

প্রথম ম্যাচে উত্তর বারিধারার বিপক্ষে ১–০ গোলে জিতেছিল শেখ রাসেল। এক ম্যাচ হাতে রেখে দুই জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত হলো তাদের। এক ম্যাচ হাতে রেখে বিমানবাহিনীর বিদায়ও নিশ্চিত হয়ে গেল।

গ্রুপের অন্য দুই দল শেখ জামাল ও বারিধারা। দুই দলেরই সুযোগ আছে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার। ৫ ডিসেম্বর গ্রুপের শেষ ম্যাচে শেখ জামালের প্রতিপক্ষ শেখ রাসেল আর বারিধারার প্রতিপক্ষ বিমানবাহিনী। সমান দুই ম্যাচ খেলে জামালের পয়েন্ট ৪ আর বারিধারার ১।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন