default-image

২০১৭ সালে রেকর্ড ২২২ মিলিয়ন (২২ কোটি ২০ লাখ) ইউরোর বিনিময়ে বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে পাড়ি জমিয়েছেন নেইমার। ফরাসি ক্লাবের জার্সিতে ভালো খেলতে থাকলেও কিছুদিন পরপরই শোনা যায় তাঁর বার্সায় ফেরার গুঞ্জন। নেইমার নিজেও স্পেনে ফেরার আগ্রহের কথা বলেছেন। তাঁর সাবেক বার্সেলোনা সতীর্থ মেসিও বলেছেন বার্সেলোনায় ফিরতে চান নেইমার। কিন্তু সেই গুঞ্জনের আলোর মুখ দেখা আর হয় না।

আর্থিক দুর্দশার মধ্য দিয়ে যাওয়া বার্সেলোনার পক্ষে নেইমারকে আগামী মৌসুমে টানা সম্ভব নয়। ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড পিএসজিতেই নিজের ভবিষ্যৎ দেখতে শুরু করেছেন। নতুন করে চুক্তি স্বাক্ষর করতে যাচ্ছেন। এতে আগ্রহী ক্লাবের পক্ষে তাঁকে টানা কঠিন হয়ে উঠবে। এবার তাই ‘নতুন নেইমার’–এর ওপর চোখ পড়েছে বার্সেলোনার।

বিজ্ঞাপন

নতুন নেইমার অবশ্য ব্রাজিলিয়ান নন। ঘরের কাছেই নেইমারের বিকল্প খুঁজে পেয়েছে বার্সেলোনা। স্প্যানিশ এই ফুটবলারের নাম ব্রায়ান গিল। আজ বৃহস্পতিবার ২০ বছর বয়সে পা রাখা তরুণ এই উইঙ্গারকে তুলনা করা হচ্ছে নেইমারের সঙ্গে। বর্তমানে স্প্যানিশ ক্লাব এইবারের জার্সিতে খেলছেন তিনি। ২০২০–২১ মৌসুমে স্পেনের ফুটবলের সেরা আবিষ্কার বলা হচ্ছে তাঁকে।

স্পেনের অনূর্ধ্ব–২১ দলে খেলা গিল সেভিয়া থেকে ধারে এসেছেন এইবারে। ১৪ ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ৩টি। তাঁর ওপরে মূলত নজর পড়েছে বার্সেলোনার বিখ্যাত জহুরি জার্মান ভায়া বায়াব্রিগার। যার কারণেই বার্সেলোনা পেয়েছিল আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাকে। বার্সেলোনার ইতিহাসে এরই মধ্যে নাম লিখিয়ে ফেলা আনসু ফাতিও বায়াব্রিগার কারণেই লা মাসিয়ায় জায়গা পেয়েছেন।

ব্রায়ান গিলকে নেইমারের সঙ্গে তুলনা করে বড় ফুটবলারের সার্টিফিকেট দিয়েছেন বায়াব্রিগার, ‘এই মুহূর্তে সে স্পেনের সেরা ফুটবলার এবং তাকে নেইমারের সঙ্গে তুলনা করছি। ওর মধ্যে বিশেষ কিছু আছে। এবং যেকোনো জায়গায় মানিয়ে নিতে পারে। সে ফুল ব্যাক, মাঝমাঠ বা লেফট উইঙ্গার হিসেবেও খেলতে পারে। বিষয়টি দারুণ।’

default-image

সেভিয়ার সঙ্গে ২০২৩ পর্যন্ত চুক্তি গিলের। তবে চেষ্টা করলেই তাঁকে নিতে পারবে বার্সেলোনা। স্পেনের ফুটবলের নিয়ম অনুযায়ী সবারই বাই আউট ক্লজ থাকে। আর গিলের বাই আউট ক্লজ এখনো সীমার মধ্যে। বর্তমান চুক্তি অনুযায়ী এই মুহূর্তে ৩৫ মিলিয়ন ইউরো খরচ করলেই গিলকে পাওয়া যাবে। এরই মধ্যে এ বিষয় নিয়ে বায়াব্রিগার আলোচনা করেছেন বার্সেলোনোর ক্রীড়া পরিচালকের সঙ্গে, ‘আমি ব্রায়ান গিলের ব্যাপারে রোমান প্লানেসের (বার্সেলোনার ক্রীড়া পরিচালক) সঙ্গে আলাপ করেছি এবং বিষয়টি মাথায় আছে তাঁর। যদি এখনই চুক্তি করা যায় ৩৫ মিলিয়ন ইউরো রিলিজ ক্লজে পাওয়া যাবে তাঁকে। তবে সে যদি সেভিয়ার সঙ্গে নতুন চুক্তি করে ফেলে তখন ১৫০ মিলিয়ন ইউরো রিলিজ ক্লজ হতে পারে।’

সেভিয়ার বিখ্যাত একাডেমিতে বেড়ে ওঠা গিল আপাতত অন্য ক্লাবে অভিজ্ঞতা অর্জনে ব্যস্ত। প্রথমে ধারে পাঠানো হয়েছিল লেগানেসে। সেখান থেকেই এই বছর এসেছেন এইবারে। এই গ্রীষ্মেই এইবারের সঙ্গে ধারের চুক্তি শেষ হয়ে যাবে।

বিজ্ঞাপন
ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন