বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বয়সভিত্তিক দল পেরিয়ে জাতীয় দলে অল্প কদিনেই মানিয়ে নিয়েছেন ইয়াছিন। দলে নিয়মিত মুখ হয়ে উঠছেন। মালেতে কোচ অস্কার ব্রুজোন তাঁর ওপর আস্থা রেখেছেন দুটি ম্যাচেই। সেই আস্থার প্রতিদান দিয়ে রক্ষণ যেমন করছেন, গোল করে দলকে মূল্যবান পয়েন্ট এনে দিয়েছেন ভারতের বিপক্ষে।

গতকাল ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, ‘ভারতে বিপক্ষে গোল করতে পারা ভাগ্যের ব্যাপার। আমি ভীষণ আনন্দিত এই গোল করে।’ সেই আনন্দের রেশ ধরে আজ অনুশীলন শেষে বলে গেলেন, ‘সুযোগ পেলে আরও গোল করতে চাই জাতীয় দলের হয়ে। যেকোনো সময়ই চলে আসতে পারে সুযোগ। তাই তৈরি থাকি। আক্রমণে উঠি।’

ইয়াছিনের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের সৈয়দপুরে। তপু বর্মণের বাড়ি থেকে আট-নয় কিলোমিটার দূরে। শুধু এ দুজন নয়, বাংলাদেশ ফুটবল দলে বর্তমানে নারায়ণগঞ্জের খেলোয়াড় তিনজন। অন্যজন হলেন তরুণ মিডফিল্ডার মোহাম্মদ হৃদয়। চলমান সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের ২টি গোলই নারায়ণগঞ্জের দুই ফুটবলারের।

default-image

একসময় নারায়ণগঞ্জকে বলা হতো ফুটবলারের খনি। এখন ফুটবলার সরবরাহ কমে এলেও ইয়াছিনরা ধরে রেখেছেন নারায়ণগঞ্জের পতাকা। ইয়াছিন সম্পর্কে তপু বলেন, ‘ও দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারে। ডিফেন্ডিংও ভালো। যে কারণে কোচ ওর ওপর আস্থা রাখে।’

সাইফ স্পোর্টিংয়ের সঙ্গে তিন বছরের চুক্তি শেষে এ বছর মুক্ত খেলোয়াড় ইয়াছিন। নতুন মৌসুমে নতুন কোনো দলে নাম লেখাতে চান। হতে চান দেশের সেরা ডিফেন্ডার।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন