বিজ্ঞাপন
default-image

ইন্টার মিলানে ভালোই আছেন মার্তিনেজ। এ মৌসুমেই প্রথমবারের মতো সিরি ‘আ’ জিতেছেন। রোমেলু লুকাকুর সঙ্গে তাঁর জুটি প্রতিপক্ষের জন্য ত্রাস হয়ে উঠেছে। কিন্তু ইন্টারেই নিজেকে আটকে রাখতে রাজি নন মার্তিনেজ। ক্যারিয়ারে পরের ধাপ হিসেবে এবার ইউরোপে দাপট দেখানো দলগুলোতে পা রাখতে চান। তাঁর নিজের পছন্দ বার্সেলোনা হলেও লক্ষ্য পূরণ যে হচ্ছে না, সেটা নিশ্চিত।

আর্থিকভাবে দেউলিয়ার মুখে থাকা বার্সেলোনা আগামী মৌসুমে মুফতে খেলোয়াড় টানায় ব্যস্ত থাকবে। বাজারে এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে, ম্যানচেস্টার সিটি থেকে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড সের্হিও আগুয়েরো যাচ্ছেন বার্সেলোনায়। লিওঁ থেকে বিনা মূল্যে টেনে আনা হচ্ছে মেম্ফিস ডিপাইকে। দলে আগে থেকেই আছেন মেসি, আঁতোয়ান গ্রিজমান, আনসু ফাতি, মার্টিন ব্রাথওয়েট, উসমান দেম্বেলে। এ অবস্থায় আরেকজন ফরোয়ার্ডকে দলে নেওয়া সম্ভব না বার্সেলোনার পক্ষে।

default-image

মার্তিনেজের এজেন্টও সেটা ভালোই বুঝেছেন। তাই আলেহান্দ্রো কামানো এই সপ্তাহেই স্পেনমুখী হয়েছেন। বার্সেলোনা নয়, মাদ্রিদেই কেটেছে তাঁর সময়। মাদ্রিদের বড় দুই ক্লাব রিয়াল ও আতলেতিকোর সঙ্গে সম্ভাব্য দলবদল নিয়ে কথা বলেছেন। মাত্রই সিরি আ জেতা এক দল থেকে খেলোয়াড়কে অন্য কোথাও নেওয়া কঠিন হবে জেনেই মৌসুম শেষ হওয়ার আগেই আলোচনা এগিয়ে রাখতে চেয়েছেন কামানো।

এদিকে রিয়াল মাদ্রিদ আগামী মৌসুমে মূল লক্ষ্য বানিয়েছে কিলিয়ান এমবাপ্পে ও আর্লিং হরলান্ডকে। কিন্তু হরলান্ডের দল বরুসিয়া ডর্টমুন্ড সরাসরি জানিয়ে দিয়েছে ২০২২ সালের আগে তাঁকে ছাড়া হবে না। আর এমবাপ্পেকে একের পর এক লোভনীয় প্রস্তাব দিয়ে যাচ্ছে পিএসজি। পিএসজির ক্রোধ উদ্রেক করে কোনো খেলোয়াড় টানার ঝুঁকি নিতে রাজি নয় রিয়াল। সে ক্ষেত্রে মার্তিনেজকে দলে টানাই সহজ সমাধান। ওদিকে আতলেতিকো দিয়েগো কস্তাকে হারানোর পর স্ট্রাইকে লুইস সুয়ারেজের জন্য নতুন সঙ্গী এখনো খুঁজে পায়নি।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন