বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

ফেনারবাচের জার্সিতে কয়েক সপ্তাহ ধরে দেখা যাচ্ছে না ওজিলকে। ক্লাবের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল, পিঠের ব্যথা তাঁকে মাঠে নামতে দিচ্ছিল না। কিন্তু তুরস্কের সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ওই সময়টায় বেতন না দেওয়াতেই মাঠে নামেননি ৩৩ বছর বয়সী ওজিল।

এমন গুঞ্জন বাতাসে উড়ে বেড়াতে দেখে ভালো লাগেনি ফেনারবাচের। সরাসরি বিবৃতিতে তাই প্রতিবাদ জানিয়েছে তুরস্কের ফুটবলের শীর্ষ স্তর সুপার লিগের ক্লাবটি, ‘ক্লাবের কাছ থেকে বকেয়া দাবি আদায় হয়নি বলে মেসুত ওজিল খেলছেন না—এই খবরের সঙ্গে বাস্তবতার কোনো সম্পর্ক নেই। আমরা বরাবর যেমন দেখি, এমন ভুয়া খবর ক্লাবের কোনো কর্মকর্তার সঙ্গে কথা না বলে সম্পূর্ণ এলোমেলোভাবে বানানো হয়। এসব আর সহ্য করা সম্ভব হচ্ছে না। ফেনারবাচ আর্থিকভাবে যত দুরবস্থার মধ্য দিয়েই যাক না কেন, এখন পর্যন্ত সবার বেতনই সময়মতো দেওয়া হয়েছে।’

default-image

ফেনারবাচের আর্থিক দুর্দশার কথা এখন আর কারও অজানা নয়। দেনার দায়ে ডুবতে বসেছে ক্লাবটি। করোনা মহামারি ক্লাবের আর্থিক অবস্থা আরও সঙ্গীন করেছে। এ কারণে উয়েফার আর্থিক সংগতির নিয়মও ভাঙতে হয়েছে তাদের। এর মাঝেও তারকা খেলোয়াড় টানায় আগ্রহে ঘাটতি পড়েনি ফেনারবাচের। করোনার মধ্যেই তো ওজিলকে দলে টেনেছে তারা!

ওদিকে তুরস্কে গিয়েও ভুগছেন ওজিল। আর্সেনালে ফর্ম হারিয়ে খেলতে পারছিলেন না। আর নতুন ক্লাবে গিয়ে চোট সমস্যায় প্রথমে কিছুদিন নামতে পারেননি। চোট থেকে ফিরে ফর্ম ফিরে পেতেও সময় লেগেছে। ফেনারবাচের হয়ে প্রথম ১০ ম্যাচে গোল পাননি। তবে এ মৌসুমে আবার আলো ছড়াচ্ছিলেন। চোট পাওয়ার আগে ১৯ ম্যাচে ৭ গোল করেছেন।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন