default-image

এবার রোজার কল্যাণেই অসাধারণ এক দৃশ্যের অবতারণা হয়েছে জার্মান বুন্দেসলিগায়। লিগের ম্যাচ খেলতে গতকাল মাঠে নেমেছিল দুই জার্মান ক্লাব আর বি লাইপজিগ ও হফেনহেইম। ম্যাচের ৩০ মিনিটের মাথায় হুট করে কিছুক্ষণের জন্য পানি পানের বিরতির ঘোষণা দেন রেফারি বাস্তিয়ান ডানকের্ট। সাধারণত প্রচণ্ড গরমের মধ্যে ম্যাচ হলে রেফারি পানি পানের বিরতির ঘোষণা দিতে পারেন। কিন্তু গতকাল আবহাওয়া তেমনটা ছিল না। লাইপজিগের আকাশ ছিল মেঘলা, তাপমাত্রা ছিল ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। নিঃসন্দেহে বেশ ঠান্ডাই বলা চলে। রেফারির খেলা থামানোর কারণ ছিল ইফতারের বিরতি।

লাইপজিগের হয়ে খেলতে নেমেছিলেন ফ্রান্সের মুসলিম ডিফেন্ডার মোহাম্মদ সিমাকান। তাঁর জন্যই সূর্য ডুবে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কয়েক মিনিটের জন্য খেলা থামান জার্মান রেফারি বাস্তিয়ান ডানকের্ট। রোজা রাখা সিমাকান যেন ইফতারের সুযোগ পান, সে জন্যই রেফারি খেলা থামানোর বাঁশি বাজান।

default-image

রেফারির এই পদক্ষেপ মুগ্ধ করেছে লাইপজিগকে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অস্তগামী সূর্যের ছবি পোস্ট করে ক্লাবটি লিখেছে, ‘রেফারি বাস্তিয়ান ডানকের্টের অসাধারণ আচরণ। সূর্য ডোবার সঙ্গে সঙ্গে তিনি লাইপজিগ ও হফেনহেইমের মধ্যকার ম্যাচটা থামিয়ে দিয়েছেন, যেন লাইপজিগের ডিফেন্ডার মোহাম্মদ সিমাকান রোজা ভাঙতে পারেন।’

সিমাকানও তাই কোনো অসুবিধা ছাড়াই ইফতার করে রোজা ভাঙতে পেরেছেন। তাই বলে এই ফরাসি ডিফেন্ডার যে হরেক রকমের খাবার খেতে বসে পড়েছিলেন, ব্যাপারটা তেমন নয়। পানি পানের পাশাপাশি সিমাকানকে দেখা যায় এনার্জি বার ও এনার্জি জেল খেতে, ফুটবলারদের শক্তিবর্ধক হিসেবে এই খাবারগুলো বরাবরই জনপ্রিয়।

সিমাকান নিজেও রেফারিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন, 'রেফারি আর খেলোয়াড়দের ধন্যবাদ আমাকে ইফতারের জন্য কয়েক মিনিট সময় দেওয়ার জন্য।'

তবে এবারই যে প্রথম খেলোয়াড়দের ইফতারের জন্য রেফারি বিরতির ঘোষণা দিলেন, ব্যাপারটা তেমন নয়। গত বছর ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে দুই দলের দুই মুসলিম ফুটবলার চিকু কাউয়াতে আর ওয়েসলি ফোফানা যেন ইফতার করতে পারেন, এ জন্য ক্রিস্টাল প্যালেস-লেস্টার সিটি ম্যাচের ৩৩ মিনিটে পানি পানের বিরতির ঘোষণা দেন রেফারি। সেবারই প্রথম ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের কোনো ম্যাচে ইফতারের জন্য বিরতি দেওয়া হয়।

ম্যাচের আগে দুই দলের অধিনায়কই ঠিক করে রেখেছিলেন, ফোফানা-কাউয়াতের ইফতারের সময় হলে ম্যাচে তাঁরা বিরতি নেবেন। সূর্য ডোবার পর বল যখন মাঠের বাইরে যাবে, তখনই বিরতিটা নেওয়া হবে—এই ছিল পরিকল্পনা।

ম্যাচ শেষে জয় পেয়েছে সিমাকানের লাইপজিগই। ফরাসি ফরোয়ার্ড ক্রিস্টোফার এনকুনকু, জার্মান ডিফেন্ডার মার্সেল হালস্টেনবার্গ ও হাঙ্গেরিয়ান মিডফিল্ডার দমিনিক জবোস্লাইয়ের কল্যাণে ৩-০ গোলের জয় পেয়েছেন সিমাকানরা। তবে জয় ছাপিয়ে বড় হয়ে উঠেছে রেফারি বাস্তিয়ান ডানকের্টের ওই সিদ্ধান্তটাই!

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন