বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের এবারের রাউন্ডের প্রথম ম্যাচের পরও একটু সমালোচনা হয়েছিল নেইমারের। বাছাই পর্বে এখন পর্যন্ত অপরাজিত ব্রাজিল সে ম্যাচে চিলিকে ১-০ গোলে হারিয়েছিল। সে ম্যাচে আলোচনা হয়েছিল নেইমারের ভুঁড়ি নিয়ে। কোপা আমেরিকা ফাইনালের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছিল নেইমারের কিছু ছবি। টুর্নামেন্ট শেষে ছুটির আমেজে থাকা নেইমার একটু আয়েশি জীবন কাটাচ্ছিলেন, আর তাতে বেশ দৃশ্যমান একটা ভুঁড়িও হয়েছিল তাঁর।

এরপর পিএসজির অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন নেইমার। এক ম্যাচে খেলেছেনও ক্লাবের হয়ে। কিন্তু চিলির বিপক্ষে মাঠে নামার পরও নেইমারকে দেখে এমনই বেঢপ লাগছিল যে মনে হচ্ছিল ভুঁড়িটা ছুটির সঙ্গে সঙ্গে বিদায় নেয়নি।

default-image

২৯ বছর বয়সী এই ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড অবশ্য ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে ভুঁড়ি নিয়ে হাসি-তামাশা আর সমালোচনার জবাব দিয়েছেন, ‘জার্সিটা ছিল “জি” (ইউরোপিয়ান “এল” সাইজ) আকারের। আমি আমার সঠিক ওজনেই আছি। পরের ম্যাচে আমি আমার জন্য “এম” সাইজের জার্সি বানাতে বলব।’ বার্তাটির পাশে বেশ কয়েকটি হাসির ইমোজি।

আর্জেন্টিনার সঙ্গে ‘এম’ সাইজের জার্সি পরে নেমেছিলেন কি না, সেটা বোঝার আগেই গন্ডগোল লেগে গিয়েছিল। ব্রাজিলিয়ান স্বাস্থ্যসেবা তদারকি সংস্থা আনভিসা, আর্জেন্টিনার চার খেলোয়াড়কে আটকাতে গিয়ে ম্যাচই থামিয়ে দিল।

সে কারণে আর নেইমারকে ওভাবে দেখার সুযোগ মেলেনি। আজ পেরুকে হারানোর ম্যাচে নেইমার গোল করেছেন, রেকর্ড ভেঙেছেন। এরপর ইনস্টাগ্রামে নিজের একটি ছবি দিয়েছেন। স্টোরিতে জার্সি তুলে নিজের মেদহীন পেট দেখিয়ে লিখেছেন, ‘মোটু ফুটবলটা ভালো খেলে।’

একসঙ্গে দুই ধরনের সমালোচনার জবাব দিয়ে দিলেন নেইমার। নিজের শারীরিক অবস্থা কেমন, সেটা ছবি দিয়েই বুঝিয়ে দিয়েছেন। নিজের ফিটনেস প্রমাণ করেছেন। আবার গোল করে বুঝিয়ে দিয়েছেন, এখনো যদি তাঁকে মোটা মনেও হয়, সমস্যা নেই। কারণ, মোটা হয়েও যদি এভাবে খেলা যায়, তাহলে আর সমস্যা কোথায়!

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন