বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সর্বকালের অন্যতম সেরা এ ফুটবলারের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণের সময় বার্সেলোনার খেলোয়াড় ছিলেন মেসি। তারপর এই এক বছরে মেসির জীবনও পাল্টেছে। বার্সেলোনা ছেড়ে এখন তিনি পিএসজির। এর মাঝে জিতেছেন কোপা আমেরিকাও। আর্জেন্টিনার হয়ে এটি মেসির প্রথম শিরোপা।

ম্যারাডোনা বেঁচে থাকতে এমন সাফল্যের দেখা পাননি মেসি। গত জুলাইয়ে কোপা আমেরিকা জিতে ম্যারাডোনাকে স্মরণ করতে ভোলেননি আর্জেন্টাইন তারকা, ‘...অবশ্যই এটা (শিরোপা) ডিয়েগোর জন্যও, তিনি যেখানেই থাকুন না কেন আমাদের সমর্থন দিয়েছেন।’

default-image

মেসির সঙ্গে ম্যারাডোনার সম্পর্কটা সব সময়ই মধুর ছিল। উত্তরসূরিকে সব সময়ই স্নেহের চোখে দেখতেন ম্যারাডোনা। মৃত্যুর পরও ম্যারাডোনা এখনো আগের মতোই প্রাসঙ্গিক। ফুটবল নিয়ে নানা কথা ও আলোচনায় উঠে আসে তাঁর প্রসঙ্গ।

ম্যারাডোনার দুর্দান্ত সব গোল, ড্রিবলিং—এসবের সঙ্গে এখনো তুলনা চলে অন্যদের। বরাবরই ঠোঁটকাটা ম্যারাডোনাকেও অনেকে ভুলতে পারেননি। সংবাদমাধ্যমে তিনি প্রকাশ্যে সমালোচনা করেছেন অনেক কিছুর, অনেকের।

এমন বর্ণিল চরিত্রকে যে মেসি মিস করেন, ম্যারাডোনার প্রস্থান মেসিকে যে এখনো ভেতরে-ভেতরে কাঁদায়—তা বোঝা গেল পিএসজি তারকার কথায়।

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমটিকে তিনি বলেন, ‘অবিশ্বাস্য লাগছে যে এক বছর পেরিয়ে গেছে। আর্জেন্টিনা এত বছর পর শিরোপা জিতল...কিন্তু তিনি নেই। সত্য কথা হলো এটা অদ্ভুত এক অনুভূতি যে (ম্যারাডোনার মৃত্যু) বিশ্বাস হতে চায় না। সব সময়ই মনে হয়, টিভিতে কিংবা সংবাদমাধ্যমে তাকে দেখা যাবে। কোনো বিষয়ে হয়তো নিজের মতামত দেবেন। এতগুলো দিন পেরিয়ে গেল কিন্তু মনে হচ্ছে গতকালের ঘটনা। আমি সেরা স্মৃতিগুলোই মনে রাখব এবং তার সঙ্গে কিছু ভাগ করতে পারায় নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন