ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টে শুধু চ্যাম্পিয়নস লিগেই ইংলিশ ক্লাবটির মুখোমুখি হয়েছে রিয়াল। প্রথম মুখোমুখি ২০১২ সালে গ্রুপ পর্বে; প্রথম ম্যাচ জিতলেও পরের ম্যাচটি ড্র করেছিল রিয়াল। এরপর ২০১৬ চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিফাইনাল প্রথম লেগে গোলশূন্য ড্রয়ের পর বার্নাব্যুতে ফিরতি লেগে ফার্নান্দিনহোর আত্মঘাতী গোলে জেতে রিয়ালই।

দুই বছর আগে শেষ ষোলোয় অবশ্য দুই লেগ জিতেই কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠে পেপ গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটি। আজ বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত একটায় সপ্তমবারের মতো মুখোমুখি হবে দুই দল।

default-image

রিয়াল কোচ কার্লো আনচেলত্তির বিপক্ষে সিটি কোচ পেপ গার্দিওলার রেকর্ডও ইংলিশ ক্লাবটির সমর্থকদের উৎসাহ জোগাতে পারে। এ পর্যন্ত ছয়বার আনচেলত্তির মুখোমুখি হয়ে চারবারই জিতেছেন গার্দিওলা। দুই ম্যাচ জিতেছেন আনচেলত্তি। এ দুটি ম্যাচই আনচেলত্তি জিতেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগে। ২০১৪ সালে রিয়ালকে ‘লা ডেসিমা’ (দশম শিরোপা) জেতানোর পথে সেমিফাইনালে গার্দিওলার বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে দুই লেগ মিলিয়ে ৫-০ গোলে জেতেন আনচেলত্তি।

চ্যাম্পিয়নস লিগ ও ঘরোয়া লিগে আনচেলত্তির বিপক্ষে চার ম্যাচ জিতেছেন গার্দিওলা। রিয়াল কোচ হিসেবে গার্দিওলার বিপক্ষে মাত্র দুটি জয়ই পেয়েছেন আনচেলত্তি—ওই তো ২০১৪ সালে চ্যাম্পিয়নস লিগে।

স্প্যানিশ কোচ গার্দিওলার কাছে রিয়াল মোটেও অচেনা প্রতিপক্ষ নয়। লা লিগায় বার্সেলোনার কোচ হিসেবে রিয়ালের মুখোমুখি হয়েছেন গার্দিওলা। তখন তাঁর হাত ধরে সোনালি সময় কাটিয়েছে বার্সা (২০০৮-২০১২)।

সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ১৯ বার রিয়ালের মুখোমুখি হয়ে ১১ বারই জয় তুলে নিয়েছেন গার্দিওলা। বাকি আট ম্যাচের মধ্যে চারটি ড্র ও চার হার। শুধু চেলসি (২১) ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের (২০) বিপক্ষেই এর চেয়ে বেশি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছেন গার্দিওলা।

আগের ১৯ বার রিয়ালের মুখোমুখি হওয়ার মধ্যে ১৫ বারই বার্সা কোচের দায়িত্বে ছিলেন গার্দিওলা। বায়ার্ন ও সিটির কোচ হিসেবে ছিলেন ২টি করে ম্যাচের দায়িত্বে।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন