বিজ্ঞাপন

ওদিকে লুইস সুয়ারেজকে বেচে কপাল চাপড়াতে পারে বার্সেলোনা। আতলেতিকোয় নিজের প্রথম মৌসুমেই দলের শিরোপাজয়ে শেষ ম্যাচে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গোলটি এসেছে উরুগুয়ে তারকার পা থেকে।

৬৭ মিনিটে ভায়োদোলিদ ডিফেন্ডারের ভুলের সুযোগ নিয়ে গোলটি করেন সুয়ারেজ। ম্যাচ শুরুর প্রথম ১০ মিনিটের মধ্যেই গোল পেতে পারতেন। দুই অর্ধেই দারুণ খেলে প্রাপ্য গোলটি আদায় করে নেন সুয়ারেজ।

default-image

আতলেতিকোর এগিয়ে যাওয়ার সময় ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে ১-০ গোলে পিছিয়ে হার দেখছিল রিয়াল। শেষ পর্যন্ত নিজেদের কাজটা সেরে রিয়ালকে মাঠ ছাড়ার সম্মানটুকু এনে দেন লুকা মদরিচ ও করিম বেনজেমা।

৫ মিনিটের ব্যবধানে রিয়ালকে দুটি গোলে এনে দেন দুজন। ৮৭ মিনিটে বেনজেমার গোলের পর যোগ করা সময়ে ৯২ মিনিটে রিয়াল জয়সূচক গোলটি পায় মদরিচের কাছ থেকে।

তার আগে প্রথমার্ধে দুই দলকেই হার চোখ রাঙিয়েছে। অবশ্য দুই দল হারলেও শিরোপা হাতবদল হতো। শ্রেয়তর পয়েন্ট ব্যবধানে (২ পয়েন্ট) চ্যাম্পিয়ন হতো আতলেতিকোই।রিয়াল মাদ্রিদ একাডেমি থেকে উঠে আসা অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার অস্কার প্লানোর গোলে ১৮ মিনিটে এগিয়ে গিয়েছিল ভায়োদোলিদ।

৫৭ মিনিটে আনহেল কোরেয়ার গোলে সমতায় ফেরে আতলেতিকো। ওদিকে নগর প্রতিদ্বন্দ্বীরা পিছিয়ে পড়ার ২ মিনিট পরই রক্ষণভাগের ভুলে গোল হজম করে রিয়াল। ভিয়ারিয়ালের হয়ে গোল করেন ইয়েরেমি পিনো।

default-image

এইবারকে ১-০ গোলে হারিয়ে টেবিলের তিনে থেকে মৌসুম শেষ করা নিশ্চিত করে রাখল বার্সেলোনা। লিওনেল মেসিকে ছাড়াই এ ম্যাচে মাঠে নেমেছিল রোনাল্ড কোমানের দল। ৮১ মিনিটে আঁতোয়ান গ্রিজমানের গোলে জয় পায় তারা। ৩৮ ম্যাচে ৭৯ পয়েন্ট নিয়ে তিনে বার্সা। ৩৭ ম্যাচে ৭৪ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ সেভিয়ার হাতে ১ ম্যাচ থাকলেও বার্সাকে ধরতে পারবে না। অবনমন নিশ্চিত হয়েছে উয়েস্কা, ভায়োদোলিদ ও এইবারের।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন