বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পিএসজির ওয়েবসাইটে আজ মূল দলের খেলোয়াড়দের শারীরিক অবস্থা নিয়ে বিবৃতি দেওয়া হয়। সেখানে বলা হয়, আনহেল দি মারিয়া, ইউলিয়ান ড্রাক্সলার, দানিলো পেরেইরা, লেভিন কুরজাওয়া এবং জিয়ানলুইজি দোন্নারুম্মারা কোভিড-১৯ ভাইরাসের কারণে আইসোলেশনে থাকবেন।

অর্থাৎ লিওঁর বিপক্ষে তাঁদের কাউকে পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। এরপর মেসিকে নিয়ে বলা হয়, ‘লিওনেল মেসি আগামী দিনগুলোয় কোভিড সংক্রমণ–পরবর্তী পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকবেন’—অর্থাৎ মেসিকেও লিওঁর বিপক্ষে পাচ্ছে না পিএসজি।

চোটের কারণে মাঠের বাইরে থাকা নেইমারের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থাও জানিয়েছে পিএসজি। ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে নিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নেইমার পিএসজির চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা চালিয়ে যাবেন। মাঠে ফিরতে আরও তিন সপ্তাহ লাগবে তাঁর।’

আর্জেন্টিনায় সপরিবারে বড়দিনের ছুটি কাটাতে গিয়ে করোনায় সংক্রমিত হন মেসি। ২ জানুয়ারি তাঁর প্যারিসে ফেরার কথা থাকলেও আইসোলেশনে থাকায় ফিরতে পারেননি। ছুটির আমেজে থাকা মেসি ও তাঁর স্ত্রী আন্তোনেলা রোকুজ্জোর গানের তালে তালে নাচার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

আইসোলেশনে থাকায় ৩ জানুয়ারি ফ্রেঞ্চ কাপে ভাস অলিম্পিক ক্লাবের বিপক্ষে মেসি খেলতে পারেননি। শীতকালীন বিরতির পর সেটি ছিল পিএসজির প্রথম ম্যাচ।

মেসি পরে পিএসজিতে ফিরলেও লিওঁর বিপক্ষে আগামীকালের ম্যাচে তাঁর খেলার সম্ভাবনা নিয়ে অনিশ্চয়তার ইঙ্গিত আগেই দিয়েছিলেন পিএসজি কোচ মরিসিও পচেত্তিনো।

আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের করোনায় সংক্রমিত হওয়ার খবর পাওয়ার পর পচেত্তিনো বলেছিলেন, ‘আমি জানি না লিওঁর বিপক্ষে সে খেলতে পারবে কি না। সবকিছুই নির্ভর করছে পরীক্ষার ফলের ওপর, কখন ভ্রমণ করতে পারবে এসব আরকি। আমরা ওকে দেখার পর ওকে খেলানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।’

পরে মেসি নেগেটিভ হলেও পচেত্তিনোর কথাই সত্যি হলো। লিওঁর বিপক্ষেও লিওকে পাওয়া হচ্ছে না পিএসজির।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন