বিজ্ঞাপন

কিন্তু ক্যারিয়ারের প্রতিটি ম্যাচে যদি শতভাগ না দেন, তাহলে তিনি সর্বকালের অন্যতম সেরা কেন? মেসি তাই গোটা মৌসুম ধরেই মাঠের ভেতরের জীবন ও বাইরের জীবনকে আলাদা করে রেখেছেন সচেতনভাবেই। মাঠের বাইরে কী হচ্ছে, চুক্তির কী হচ্ছে, এ সবকিছুর প্রভাব পড়তে দেননি মাঠের পারফরম্যান্সের ওপর। মাঠে সেই দুরন্ত মেসিকেই দেখেছে সবাই। মৌসুম শেষে সে দুরন্তপনারই পুরস্কার পেয়েছেন। লা লিগার সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছেন ৩০ গোল করে, তারই স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন ‘পিচিচি ট্রফি’।

default-image

এই নিয়ে আটবারের মতো লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতা হলেন মেসি, এর মধ্যে পাঁচবার টানা জিতলেন। ক্যারিয়ারের এই পর্যায়ে এ পুরস্কারটি পাওয়া যেন একরকম ডালভাত হয়ে গেছে মেসির কাছে। এর আগে রিয়াল মাদ্রিদের দুই কিংবদন্তি স্ট্রাইকার আলফ্রেদো দি স্তেফানো ও উগো সানচেজ টানা চারবার জিতেছিলেন পিচিচি, এবার জিতে তাঁদের ছাড়িয়ে গেছেন মেসি। তা–ও এবারের বিপক্ষে মৌসুমের শেষ ম্যাচে তো খেলেনইনি। খেললে আরও কটা গোল তালিকায় যুক্ত হতো না, সেটা নিশ্চিত করে কে-ই বা বলতে পারে!

বার্সেলোনার হয়ে লিগে গোল দেওয়ার তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন ফরাসি স্ট্রাইকার আতোয়ান গ্রিজমান। তাঁর চেয়ে মেসির গোল ১৭টা বেশি!

default-image

মেসি এই ৩০ গোলের মধ্যে ২৭টা করেছেন বাঁ পা দিয়ে, একটা করেছেন ডান পা দিয়ে, আর দুটি করেছেন হেড করে। ৩০ গোল করতে শট নিয়েছেন ১৯৬টা। ৩০টার মধ্যে ৩টি গোল এসেছে পেনাল্টি থেকে। এই লিগ মৌসুমে প্রতি ১০১ মিনিটে একটি করে গোল করেছেন মেসি।

তালিকার দ্বিতীয় স্থানে আছেন রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি স্ট্রাইকার করিম বেনজেমা, যাঁর গোলসংখ্যা ২৩, মেসির চেয়ে ৭টি কম।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন