default-image

দ্বিতীয় লেগে ভিয়ারিয়ালের মাঠে কী করতে হবে, সেটিরও তাত্ত্বিক একটা পরিকল্পনা জানিয়ে দিলেন লিভারপুল কোচ, ‘এখনো কিছুই হয়নি। আমাদের দ্বিতীয়ার্ধটা (লড়াইয়ের দ্বিতীয় লেগ) প্রথমার্ধের মতো করেই খেলতে হবে। আমরা মাত্র ২-০ গোলে এগিয়ে, ওখানে স্টেডিয়ামের আবহটাই অনেক কঠিন থাকবে। এই দলটাকে (ভিয়ারিয়াল) তাদের কোচের জন্য লড়তে দেখেছি আমরা, আমি নিশ্চিত এবারও ফাইনালে ওঠার জন্য ওরা সবটুকু দিয়ে লড়বে।’

ক্লপের কথাগুলোকে যদি জয়ী দলের কোচের বিনয় মনে হয়ে থাকে, সে ক্ষেত্রে এমেরির কথাগুলোকে মনে হবে পরাজিতের প্রত্যাবর্তনের প্রতিজ্ঞা। দ্বিতীয় লেগে সবকিছু অন্যরকম হবে বলেই জানিয়ে রেখেছেন ভিয়ারিয়াল কোচ, ‘সেমিফাইনালে আপনাকে এত কঠিন দলের সামনে পড়তে হয়! ওরা এখন যেমন ছন্দে আছে, সেটা অসাধারণ। আজ আমাদের খেলাটা ছিল মূলত রক্ষণে ভালো করে ওদের যতটা সম্ভব আটকে রাখা, যাতে দ্বিতীয় লেগে নামার আগে আমাদের সম্ভাবনা বেঁচে থাকে। সেটা আমরা করতে পেরেছি। ওখানে (ভিয়ারিয়ালের মাঠে) সবকিছু অন্যরকম হবে। আমরা আরও বেশি কিছু দিয়ে লড়ব।’

default-image

প্রচ্ছন্ন হুমকি দিয়ে রেখেছেন ভিয়ারিয়ালের ডিফেন্ডার পাউ তোরেসও, ‘আমাদের সমর্থকদের বলি, আগামী সপ্তাহে ম্যাচটা ভিন্ন হবে। আমরা আবার আমাদের মতো হব। আমরা এখনো জেতার আত্মবিশ্বাস রাখছি। এখনো এই লড়াইয়ে ভিয়ারিয়ালের কিছু বলার আছে।’

তবে অ্যানফিল্ডে কাল ২-০ গোলে হারটা তাঁর দলের প্রাপ্য ছিল বলেই মনে হচ্ছে এমেরির, ‘দলটা লিভারপুল। সবাই জানি, ওরা চ্যাম্পিয়নস লিগের ফেবারিটদের একটি। ওরা আমাদের চেয়ে অনেক এগিয়ে, তবে আমরাও ওদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে পারি, নিজেদের জন্য সুযোগ তৈরি করতে পারি। লড়াইটা যখন দুই লেগের, তখন (প্রথম লেগে) হারের ক্ষেত্রে আপনাকে পূর্বাপর বিবেচনা করতে জানতে হবে। আমাদের আজ ২-০ গোলে হারের চেয়ে বেশি কিছু প্রাপ্য ছিল না।’

হারটা আরও বড় ব্যবধানে হতে পারত বলেও নির্দ্বিধায় মেনে নিয়েছেন ভিয়ারিয়াল কোচ, ‘আমরা চেষ্টা করব নিজেদের মাঠের ম্যাচটা যাতে ভিন্নরকম হয়। আজ আমাদের পরিকল্পনাটা কাজে লাগেনি। তবে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারত, কারণ ওদের কিছু গোল অফসাইডে বাতিল হয়েছে। আমরা লো ব্লকে খেলেছি, সেভাবে সুযোগই তৈরি করতে পারিনি। আমাদের হাতে এখন ৯০ মিনিট আছে, সেটাকে ভিন্নরকম বানানোর চেষ্টা করব।’

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন