বিজ্ঞাপন

ছয়বারের ব্যালন ডি’অর–জয়ী আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড সম্ভবত এই মুহূর্তে ক্যারিয়ারের—জীবনেরও—সবচেয়ে বেশি সুখের সময়গুলোর একটি কাটাচ্ছেন। তিন দিন আগে আর্জেন্টিনাকে কোপা আমেরিকা জিতিয়েছেন, ৩৪ বছর বয়সে এসে অবশেষে আর্জেন্টিনার জার্সিতে কিছু জিততে না পারার আক্ষেপ ঘুচল তাঁর। আর্জেন্টাইনদেরও ২৮ বছরের শিরোপা–খরা ঘুচেছে এতে। আর্জেন্টিনাকে তো মেসি খুশি করেছেনই, এবার মেসিকে ঘিরে আনন্দের খবর পাচ্ছেন বার্সেলোনা সমর্থকেরাও।

সমর্থকদের জন্য শঙ্কা-সম্ভাবনা দুই ধরনের খবরই গত কয়েক দিনে এসেছে। একদিকে শোনা যাচ্ছিল, পিএসজি, ম্যানচেস্টার সিটি, ইন্টার মিলানের মতো ক্লাব মেসিকে চায়। অন্যদিকে কেউ কেউ বলছিলেন, মেসি বার্সার সঙ্গেই চুক্তি নবায়ন করবেন। প্রশ্নটা ‘করবেন কি না’ নয়, বরং ‘কখন করবেন’ হওয়া উচিত বলে জানিয়েছিল কয়েকটি সংবাদমাধ্যম। দ্বিতীয় গুঞ্জনটিই সত্যি হতে যাচ্ছে।

বার্সায় মেসি সর্বশেষ চুক্তি অনুযায়ী, পাঁচ বছরে ক্লাবে মৌসুমপ্রতি ৭ কোটি ৫০ লাখ ইউরো আয় করেছেন মেসি। এখন সেটির অর্ধেকে নামিয়ে আনছেন। কারণ, বার্সেলোনার আর্থিক দুরবস্থা। স্পোর্ত লিখেছে, ক্লাবের এই অবস্থা বুঝতে পেরেছেন মেসি আর তাঁর মনে হয়েছে, এই পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বড় উদাহরণটা তাঁরই রাখা উচিত। চুক্তি নবায়নের ক্ষেত্রে বেতন কমানো নিয়ে কখনোই মেসির সঙ্গে বার্সেলোনার ঝামেলা বাধেনি বলেও লিখেছে স্পোর্ত।

default-image

মেসি সব সময়ই বলে এসেছেন, বার্সেলোনা নিয়মিত জেতার মতো প্রকল্প তৈরি করতে পারলে, দলের প্রয়োজন বুঝে খেলোয়াড় কিনে দলটাকে লিগ-চ্যাম্পিয়নস লিগে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার মতো করে গড়ে তুলতে পারলেই তিনি থাকবেন। লাপোর্তা সে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মেসিকে, সেটিই কাজ করেছে মেসির চুক্তি নবায়নে বড় প্রভাবক হিসেবে।

পাঁচ বছরের চুক্তির বিন্যাস কী রকম হবে, তা নিয়েও প্রশ্ন ছিল। এত দিন গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল, মেসি পাঁচ বছরের জন্য চুক্তি নবায়ন করলে সেখানে দুই বছর তিনি খেলবেন বার্সেলোনায়, এরপর ডেভিড বেকহামের ক্লাব ইন্টার মায়ামির হয়ে খেলতে যুক্তরাষ্ট্রে গেলেও সেখানে তিনি বার্সেলোনার শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কাজ করবেন চুক্তির বাকি সময়। ইন্টার মায়ামি অধ্যায় শেষে আবার বার্সেলোনায় শুভেচ্ছাদূত হয়ে মেসি ফিরবেন বলে শোনা যাচ্ছিল।

কিন্তু স্পোর্ত আজ জানিয়েছে, এই পাঁচ বছরের চুক্তিতে খেলার বাইরে অন্য কিছু লেখা নেই! তার মানে ৩৯ বছর বয়স পর্যন্ত মেসি বার্সেলোনাতেই খেলবেন! চুক্তিতে ‘রিলিজ ক্লজ’ ৩৫ কোটি ইউরো রাখা হচ্ছে বলেও জানিয়েছে স্পোর্ত।

২০০৪ সালে বার্সেলোনার জার্সিতে পেশাদার অভিষিক্ত মেসি গত মৌসুমে বার্সেলোনা ছাড়তে চেয়েছিলেন। সে সময়ের বার্সা সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক এতটাই খারাপ হয়ে গিয়েছিল! কিন্তু চুক্তির জটিলতায় বার্সা ছাড়া হয়নি।

default-image

এরপর বার্সায় সভাপতি বদল হলো, আন্দোলন করে লাপোর্তাকে সরিয়ে দিয়েছেন বার্সার নিবন্ধিত সদস্যরা, সভাপতি নির্বাচনে জয়ী হয়ে এসেছেন হোয়ান লাপোর্তা—ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে এই লাপোর্তাকেই বার্সেলোনার সভাপতি হিসেবে পেয়েছিলেন মেসি।

লাপোর্তার সঙ্গে মেসির সুসম্পর্কের কারণেই ভাবা হচ্ছিল, মেসি চুক্তি নবায়ন করবেন। কিন্তু বার্তোমেউর অধীন বোর্ডের অপরিণামদর্শী পরিচালন পদ্ধতির কারণে বার্সেলোনার আর্থিক অবস্থা এতটাই নাজুক ছিল যে মেসির চুক্তি নবায়ন শুধু বার্সেলোনা আর মেসি—দুই পক্ষেরই সম্মতির ব্যাপার থাকেনি। বার্সেলোনার বেতনের বিল লিগের অনুমিত পরিমাণ ছাড়িয়ে গেছে। এমনই অবস্থা যে এই মৌসুমে এরই মধ্যে দলে আনা চার খেলোয়াড় সের্হিও আগুয়েরো, মেম্ফিস ডিপাই, এরিক গার্সিয়া ও এমারসনকে এখনো লিগ কর্তৃপক্ষের কাছে নিজেদের খেলোয়াড় হিসেবে নিবন্ধন করাতে পারেনি বার্সেলোনা!

সে কারণে স্প্যানিশ লিগের সভাপতি তেবাস কয়েক দিন আগে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন, বার্সা বেতনের বিল কমাতে না পারলে মেসির চুক্তি নবায়ন করা তাদের পক্ষে সম্ভব হবে না। সে লক্ষ্যে বার্সা দলের প্রয়োজনের বাইরের খেলোয়াড়দের বিক্রি করে বা ধারে পাঠিয়ে বেতনের বিল কমানোর চেষ্টা তো করছেই, পাশাপাশি পিকে-আলবা-বুসকেতসদের মতো বেশি বেতন আয় করা খেলোয়াড়দেরও বেতন কমানোর অনুরোধ করেছে। যে অনুরোধে সায় দিয়েছেন পিকেরা।

default-image

ঝামেলা হলো, তাঁদের বেতন কমানো আর ফিরপো-আলেনিয়াদের মতো কয়েকজনকে বিক্রি করে হয়তো নতুন চার খেলোয়াড়কে নিবন্ধন করানো সম্ভব, কিন্তু মেসির চুক্তি নবায়ন করতে গেলে বার্সাকে আরও বেতনের বিল কমাতে হবে। সে কারণে মেসি নিজেই এগিয়ে এলেন। পাশাপাশি ক্লাবে উঁচু বেতনভোগী দুই খেলোয়াড় আঁতোয়ান গ্রিজমান আর ফিলিপ কুতিনিওকে ক্লাব থেকে বের করার উপায় খুঁজছে বার্সা।

গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে, গ্রিজমানকে নিয়ে আতলেতিকো মাদ্রিদের সঙ্গে অদলবদলের চুক্তি করতে যাচ্ছে বার্সা। যে চুক্তি অনুযায়ী গ্রিজমানের বদলে আতলেতিকো থেকে মিডফিল্ডার সাউল নিগেজকে আনার পাশাপাশি দেড় কোটি ইউরো চাইছে বার্সেলোনা। অন্যদিকে চোটে পড়া, ফর্ম হারানো কুতিনিওকে ইউরোপের কোনো ক্লাব কিনতে চাইবে না—কিংবা চাইলেও বার্সা প্রত্যাশামাফিক দাম পাবে না—ভেবে তাঁকে ধারে কোথাও পাঠাতে চাইছে বার্সা। এ দুজনের ক্লাব ছাড়া আর মেসির বেতন কমানোতে মেসির চুক্তি নবায়নের পথ পরিষ্কার হতে পারে।

সে কারণে চুক্তি নবায়নে দুই পক্ষের প্রাথমিক সমঝোতার কথা জানিয়েও স্পোর্ত লিখেছে, চুক্তি নবায়নের ঘোষণা এই মাসের শেষ দিকেই আসতে পারে। তত দিনে গ্রিজমান-কুতিনিওর মতো খেলোয়াড়দের সরিয়ে, আরও ‘প্রয়োজনের অতিরিক্ত’ খেলোয়াড়দের বিক্রি করে আর্থিক অবস্থা কিছুটা স্থিতিশীল করবে বার্সা।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন