বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ রাতে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে মালদ্বীপের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে বাংলাদেশের সঙ্গী বাজে স্মৃতিই। গত ১৮ বছর তাদের হারাতে পারেনি বাংলাদেশ। শেষ তিনটি ম্যাচে তো রীতিমতো উড়েই গেছে বাংলাদেশ দল। পাঁচ বছর আগে সর্বশেষ সাক্ষাতে হার ৫–০ গোলে। সে ম্যাচটা কোনোভাবে স্মৃতি থেকে মুছে ফেলতে পারলেই যেন বাঁচেন বাংলাদেশের ফুটবল–সংশ্লিষ্টরা।

অনুপ্রেরণার খোঁজে তাই মন বারবার ফিরে যায় ৩৬ বছর আগের স্মৃতিতে। তবে ৮–০ গোলে জয়ের সেই ম্যাচে বাংলাদেশের অধিনায়কত্বের বন্ধনী যাঁর বাহুতে ছিল, সেই ইমতিয়াজ সুলতান জনি মনে করেন ’৮৫ সালে ঢাকায় খেলে যাওয়া মালদ্বীপ আর আজকের মালদ্বীপের মধ্যে আকাশ আর পাতাল ব্যবধান। সেদিনের সেই জয় সুখস্মৃতি হলেও সেটিকে প্রেরণা বানিয়ে কতটুকু লাভ হবে, সেটি নিয়ে এন্তার সন্দেহ ইমতিয়াজ সুলতানের মনে।

default-image

‘১৯৮৫ সালে মালদ্বীপের সেই দলটি ছিল খুবই দুর্বল। ম্যাচের বেশিরভাগ সময়েই খেলা হয়েছিল প্রতিপক্ষের অর্ধে। আমাদের গোলকিপার মহসিন দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে গিয়েছিল। আমরা ডিফেন্ডাররা এতটাই নির্ভার ছিলাম যে ঝুঁকি নিয়ে ওপরে উঠছিলাম নির্দ্বিধায়। হ্যাঁ, ম্যাচটা ৮–০ গোলে জিতেছিলাম। এরপর আর কখনোই জাতীয় দল কোনো প্রতিপক্ষকে ৮ গোল দেয়নি—সবই ঠিক আছে। কিন্তু ওই মালদ্বীপের সঙ্গে এখনকার মালদ্বীপের অনেক পার্থক্য। এখনকার মালদ্বীপ দারুণ প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া। ওরা এরই মধ্যে নিজেদের শক্তির পরিচয় রেখেছে দুবার সাফ চ্যাম্পিয়ন হয়ে। আমি মনে করি ৩৬ বছর আগের সেই ম্যাচকে প্রেরণা বানিয়ে লাভ নেই। ওই ম্যাচটি খুব বেশি হলে সুখস্মৃতি হতে পারে আমাদের।’

default-image

পঁচাশির সাফ গেমসে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ ছিল সেটি। মালদ্বীপ ম্যাচের একদিন পরই ভারতের বিপক্ষে সোনার লড়াইয়ে মাঠে নেমেছিলেন ইমতিয়াজ সুলতানরা। দুর্দান্ত সে ফাইনাল শেষ হয়েছিল বাংলাদেশের হতাশায়। টাইব্রেকারে হেরে যায় বাংলাদেশ।

ফাইনালের হারটা এতটাই হতাশার ছিল যে মালদ্বীপ ম্যাচের খুঁটিনাটি অনেক কিছুই নাকি ভুলে গেছেন ইমতিয়াজ সুলতান, ‘আসলে ফাইনালের হারটা ছিল খুবই হতাশার। আমরা তুমুল লড়েও টাইব্রেকারে হেরে যাই। সে কারণেই কিনা, মালদ্বীপ ম্যাচের অনেক কিছুই আমার মনে নেই। তবে সে ম্যাচে মালদ্বীপও কিছুটা দুর্ভাগ্যের শিকার হয়েছিল, এটা মনে আছে। কায়সার হামিদের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে ওদের একজন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় আহত হয়েছিল। মাথা ফেটে গিয়েছিল তাঁর। ওই খেলোয়াড়ের আহত হয়ে বাইরে চলে যাওয়াটা প্রভাব রেখেছিল খেলায়। ওরা খুবই মুষড়ে পড়েছিল।’

ইমতিয়াজ সুলতান চান, সেই ৮-০ গোলের চর্বিতচর্বণ ছেড়ে আজ নতুন করে, নতুন ঢংয়ে, নতুন একটা গল্প লিখুক বাংলাদেশ। গল্পটা হোক সুখস্মৃতির।

ফুটবল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন