ম্যাচের শুরুতেই গোল পেলেও প্রথমার্ধে নিজেদের সেরাটা খেলতে পারেননি মেসি-নেইমাররা। প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় পিএসজি।

বিরতি থেকে ফিরে কার্লোস সোলারের গোলে ২-০ তে এগিয়ে যায় পিএসজি। এবারও গোলে সহায়তা করেন নুনো মেন্দেস। দ্বিতীয় গোল হজমের পর ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিল অসের। সুযোগও এসেছিল, তবে কাজে লাগাতে পারেনি তারা। উল্টো ৫৭ মিনিটে আরও এক গোল খেয়ে বসে অসের। গোল করেন আশরাফ হাকিমি।

পিএসজির হয়ে দ্বিতীয় গোল করা সোলার গোলে সহায়তা করেন। ম্যাচের ৭৫ মিনিটে মাঠ ছাড়েন নেইমার ও মেসি। আগের ম্যাচগুলোতে গালতিয়ের তাদের তুলে নিলে পড়তে হতো সমালোচনার মুখে। তবে আজ পরিস্থিতি ছিল ভিন্ন। তাদের তুলে নেওয়াতেই বরং স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল সমর্থকেরা। ম্যাচের বাকি দুটি গোল করেন রেনাতো সানচেজ ও হুগো একিতিকে। এই জয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ স্থানে থেকেই বিশ্বকাপ বিরতিতে গেল পিএসজি।